বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া ব্যক্তি হলেন কালাই পৌরসভার মেয়র রাবেয়া সুলতানার ছেলে ইবনে সাজ্জাদ হৃদয় (২১)। এ দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিরা হলেন আল আমিন (৪০), নাজমুল হোসেন (৩০), আলামিন (৪০), রনি (২০), মাসুদ রানা (৪০), সাব্বির হোসেন (৩০) ও নাজমুল ইসলাম (২২)। তাঁদের মধ্যে গুরুতর আহত আল আমিন, রনি ও সাব্বির হোসেনকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, দুপুরে তিনটি মোটরসাইকেলে চড়ে ইবনে সাজ্জাদসহ ছয় তরুণ হিলিতে যান। তাঁরা বিকেলে সেখান থেকে জয়পুরহাট ফেরার সময় বেপরোয়াভাবে মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন। এ সময় দরগাপাড়া নামক স্থানে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মোটরসাইকেলের সঙ্গে ইবনে সাজ্জাদকে বহনকারী মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে পেছনে থাকা তাঁদের আরও দুটি মোটরসাইকেলের চালক ও আরোহীরা ছিটকে সড়কে পড়ে যান। ঘটনাস্থলেই ইবনে সাজ্জাদ মারা যান। স্থানীয় ব্যক্তিরা তাঁদের উদ্ধার করে জয়পুরহাট জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।

এ বিষয়ে জয়পুরহাট জেলা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা আশিক আহাম্মেদ প্রথম আলোকে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে একজন তরুণ মারা গেছেন। এ ঘটনায় আহত সাতজনকে হাসপাতালে আনা হয়। তাঁদের মধ্য গুরুতর আহত তিনজনকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

পাঁচবিবি থানার ওসি পলাশ চন্দ্র দেব পাঁচবিবির দরগাপাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনা হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন