রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তাজেবুর রহমান বলেন, ২০১০ সালের ৫ আগস্ট কাউনিয়া উপজেলার ধর্মেশ্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী শাহিমা (৭) ও জিনাত জাহানকে (৭) স্কুলে যাওয়ার পথে অপহরণ করেন স্বপ্না রানী। তবে ওই দিনই দুই শিশুসহ স্বপ্না রানীকে স্থানীয় লোকজন আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

ওই দিনই অপহরণ হওয়া শাহিমার বাবা ফেরদৌস আলী বাদী হয়ে কাউনিয়া থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন। ওই মামলায় স্বপ্না রানীকে একমাত্র আসামি করা হয়। এরপর স্বপ্না জামিনে মুক্ত হয়ে গা ঢাকা দেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১০ সালের ৮ ডিসেম্বর কাউনিয়া থানার উপপরিদর্শক আমিনুল ইসলাম আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। পরে আদালত মামলার ১৫ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৩ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন