সরেজমিনে দেখা গেছে, সদর উপজেলার পাঁচপাড়া বাজার থেকে পূর্ব দিকের সড়কটি দুর্গাপুর ইউনিয়নের ডাকাতিয়া গ্রামের মধ্য দিয়ে ডেপুলিয়া গ্রামের বটতলা বাজারে গিয়ে শেষ হয়েছে। চার কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের ওই সড়কের দুই কিলোমিটার গেলে ডাকাতিয়া খাল। ডাকাতিয়া খালের ওপর দুই দশক আগে তৈরি করা লোহার সেতুটি জরাজীর্ণ হয়ে গেছে। সেতুর দুই পাশের রেলিং ও পাটাতনের কয়েকটি স্ল্যাব ভেঙে গেছে। সেতুটি দিয়ে মোটরসাইকেল, রিকশা–ভ্যান চলাচল করতে কষ্ট হয়। যেকোনো হালকা যান সেতু পার হতে গেলে কয়েকজনের সহযোগিতায় পার করতে হয়। ডাকাতিয়া সেতু পার হওয়ার আধা কিলোমিটার পর ডেপুলিয়া খালের সেতু। ডেপুলিয়া খালের লোহার সেতুটির অবস্থা ডাকাতিয়া খালের সেতুর মতোই। লোহার সেতুটির পাটাতনের কয়েকটি স্ল্যাব ভেঙে যাওয়ায় সেখানে গাছের গুঁড়ি দিয়ে চলাচলের উপযোগী রাখা হয়েছে। সেতুর লোহার খুঁটিতে মরিচা ধরেছে।

সেতু দুটি জরাজীর্ণ হয়ে যাওয়ায় দুর্গাপুর ইউনিয়নের ডেপুলিয়া গ্রাম, ডাকাতিয়া গ্রাম, দক্ষিণ জীবগ্রাম ও জবর আমল গ্রামের তিন হাজারের বেশি মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

সদর উপজেলার ডেপুলিয়া গ্রামের দেবাশীষ সমাদ্দার প্রতিদিন মোটরসাইকেল নিয়ে দুটি ভাঙা সেতু পার হয়ে পাঁচপাড়া বাজার ও জেলা সদরে যান।

ডাকাতিয়া গ্রামের কৃষক হাবিবুর রহমান শেখ বলেন, ‘সেতুর কিছু স্ল্যাব ভেঙে যাওয়ার কারণে খেতের ফসল বাজারে ভ্যানে করে নেওয়া যাচ্ছে না। সেতু দুটি মেরামত করা হলে পাঁচপাড়া বাজার ও বটতলা বাজারে আমাদের পণ্য পরিবহন সহজ হতো। এখন মাথায় করে ধান, চাল ও সবজি হাটে নিতে হচ্ছে।’

এ বিষয়ে পিরোজপুর সদর উপজেলার প্রকৌশলী হরষিত সরকার বলেন, এডিপির অর্থ বরাদ্দ পেলে উপজেলা পরিষদ থেকে সেতু দুটি সংস্কার করা হবে। পরবর্তী সময়ে সেখানে নতুন গার্ডার সেতু করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন