default-image

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সোমবার দুপুরের দিকে দুই ভাইবোন নীরা আকতার (১২) ও জিসান মিয়া (৮) স্কুল থেকে বাড়িতে ফেরে। এরপর গোসল করতে তারা বাড়ির পাশে যমুনা নদীতে নামে। গোসলের একপর্যায়ে নদীতে স্রোতের তোড়ে জিসান প্রথমে তলিয়ে যায়। তাকে উদ্ধার করতে গেলে নীরাও তলিয়ে যায়। খবর পেয়ে সারিয়াকান্দি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা প্রথমে উদ্ধার অভিযান শুরু করে ব্যর্থ হয়। সন্ধ্যায় রাজশাহী থেকে ডুবরি দল ডাকা হয়।

সারিয়াকান্দি ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কর্মকর্তা মো. ময়েজ উদ্দিন বলেন, সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত দুই শিশুর সন্ধান না মেলায় রাজশাহী থেকে ডুবরি দল ডাকা হয়। তারা সকাল ছয়টার দিকে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। অভিযানের দেড় ঘণ্টার মাথায় যমুনা নদীর সারিয়াকান্দি পৌর শহরের কালিতলা খেয়াঘাটসংলগ্ন চরবাটিয়া এলাকা থেকে প্রথমে জিসান এবং সাড়ে চার ঘণ্টা পর নীরাকে উদ্ধার করা হয়।

দুই শিশুর বাবা মশিদুল সরকার বলেন, বড় ছেলে নিরব মিয়াকে নিয়ে ধান ভাঙার জন্য উপজেলা সদরে গিয়েছিলেন। জোহরের নামাজের আজানের পর জিসানের স্কুলের দপ্তরি মুঠোফোনে তাঁকে জানান, তাঁর দুই সন্তান নদীতে ডুবে গেছে। সঙ্গে সঙ্গে নদীর পাড়ে ছুটে এসে দেখেন অনেক মানুষ জড়ো হয়েছে। মশিদুল বলেন, ‘হামার দুই ছোলই সাঁতার জানত। ক্যামনে কী হয়্যা গেল। বড় বড় বন্যাত লদি সাতরাচে ওরা। আজ শুকনা লদিত ডুবে ওরা মারা গেল। এই শোক হামি সহ্য করি ক্যামনে?’
নীরা সারিয়াকান্দি পাইলট বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী এবং জিসান ময়ূরের চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন