বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালত ওই দুই আসামিকে কারাদণ্ড দেওয়ার পাশাপাশি দুই লাখ টাকা করে জরিমানা করেছেন। দণ্ডপ্রাপ্ত দুজনের সম্পত্তি বিক্রি করে জরিমানার টাকা আদায়ের পর, তা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেওয়ার জন্য পিরোজপুর জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে দায়িত্ব দিয়েছেন আদালত। আদালতের সরকারি কৌঁসুলি এ কে নূর উদ্দিন আহম্মেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী সূত্র জানায়, মন্ত্রণালয়ের অনুমতি ছাড়া এবং দরপত্র আহ্বান না করেই একটি গাড়ি কেনার জন্য পিরোজপুর পৌরসভার রূপালী ব্যাংকের হিসাব নম্বর থেকে ১৯৮৫ সালের ২২ জুন প্রথমে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং আরেকটি হিসাব নম্বর থেকে একই দিন আরও ৬০ হাজার টাকা তোলেন তৎকালীন চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী শেখ ওরফে বাদশা ও উপসচিব আলাউদ্দিন। তাঁরা ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় টয়োটা ব্র্যান্ডের একটি গাড়ি কিনে বাকি ৮০ হাজার টাকা পৌরসভায় ফেরত না দিয়ে আত্মসাৎ করেন। এ ঘটনায় ১৯৯১ সালের ৮ জানুয়ারি দুর্নীতি দমন ব্যুরোর পিরোজপুর কার্যালয়ের কর্মকর্তা ক্লায়েন্স গোমেজ তাঁদের বিরুদ্ধে পিরোজপুর সদর থানায় একটি মামলা করেন।

১৯৯২ সালের ২২ মে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিরোজপুর জেলা দুর্নীতি দমন ব্যুরোর কর্মকর্তা নারায়ণ চন্দ্র দত্ত পৌর চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী শেখ এবং পৌরসভার তৎকালীন কর্মকর্তা উপসচিব আলাউদ্দিন আহম্মেদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। পরে ১৪ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে মঙ্গলবার দুই আসামিকে ওই দণ্ড দেন আদালত।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন