বুধবার রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান বলেন, ‘গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা থেকে রাজধানীর এয়ারপোর্ট পর্যন্ত রাস্তাটিকে যানজটমুক্ত করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিআরটি প্রকল্প আমাদের উপহার হিসেবে দিয়েছেন। কিন্তু ঠিকাদারদের ক্রমাগত দায়িত্বজ্ঞানহীনতার কারণে অনেক বছর ধরে ধীরগতিতে কাজ করায় মানুষের দুর্ভোগের কোনো সীমা নেই, আবার যখন বর্ষাকাল আসে এই দুর্ভোগ কয়েকগুণ বৃদ্ধি পায়।’

ওই পোস্টে প্রতিমন্ত্রী বলেন, গাজীপুর যাওয়ার সব বিকল্প রাস্তায় একসঙ্গে কাজ চলমান থাকায়, সেই রাস্তাগুলো বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করতে না পারায় দুর্ভোগ আরও বেড়ে গেছে। এই দুর্ভোগের হাত থেকে মানুষদের কিছুটা হলেও রক্ষা করতে রেলমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে আগামী রোববার থেকে গাজীপুর-টঙ্গী হয়ে ঢাকা এবং ঢাকা থেকে টঙ্গী হয়ে গাজীপুর পর্যন্ত বিশেষ ট্রেন সার্ভিস চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ জন্য রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলামকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

তবে জয়দেবপুরের স্টেশনমাস্টার রেজাউল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো নির্দেশনা তাঁরা পাননি। নির্দেশনা এলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিআরটি প্রকল্পের পরিচালক এ এস এম ইলিয়াস শাহ বলেন, মহাসড়কে কাজের কারণে যাতে যানজটের সৃষ্টি না হয়, এ জন্য সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আশা করছেন এখন থেকে কাজের কারণে যানবাহন চলাচলে ব্যাঘাত ঘটবে না।