বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সালামের বড় ছেলে আবুল কালাম (২৬) বলেন, তাঁর বাবা গতকাল বিকেল চারটার দিকে তিনি নিজ ইউনিয়নে ভোট দেওয়া শেষে বৈটিকরের দোকানের তালা বদল করতে যান। সে সময় তিনি জানিয়েছিলেন, দোকানের তালাটি মজবুত নয়। পরে রাত আটটার দিকে চাচা আলাউদ্দিন আহমদের মাধ্যমে বাবার গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পান। খবর পাওয়ার পরপরই চাচাকে সঙ্গে নিয়ে বৈটিকর বাজারে গিয়ে একটি মুদিদোকান থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বাবাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালে রাত সাড়ে ১০টায় নিয়ে আসার পরপরই চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বাবাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আবুল কালাম আরও বলেন, ‘বাবা কার গুলিতে নিহত হয়েছেন, সেটি বলতে পারছি না। গতকাল রাতে যখন তাঁকে উদ্ধার করা হয়েছিল, তখন কথা বলার মতো পরিস্থিতি ছিল না। ওই মুদিদোকানদার শাটার খুলে ভেতর থেকে বাবাকে আমাদের কাছে তুলে দেন। মুদিদোকানটি বাবার দোকানের পাশাপাশি ছিল। সে সময় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি ছিল। পুলিশ বারবারই ঘটনাস্থলে যেতে আমাদের বাধা দিচ্ছিল, এরপরও বাবা গুলিবিদ্ধ হওয়ায় পুলিশের বাধা উপেক্ষা করেই তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে গিয়েছিলাম।’

নিহত সালামের ভাই আলাউদ্দিন আহমদ বলেন, ‘দোকানে তালা বদলাতে গেলেও সম্ভবত রিকশা ও বাইসাইকেল মেরামতকাজ শুরু করেছিলেন তিনি। রাতে সংঘর্ষ বাধলে পরে তিনি গুলিবিদ্ধ হন। গ্রামের এক বাসিন্দার মাধ্যমে আমি ভাইয়ের গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাই।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন