বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর আগে গতকাল সোমবার দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকার ভাঙন পরিস্থিতি দেখতে আসেন বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক। এ সময় তিনি লঞ্চঘাটসহ দৌলতদিয়ার ১, ২, ৩ ও ৭ নম্বর ফেরিঘাট ভাঙনঝুঁকির কথা বলেন। এর ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই ফেরিঘাট এলাকায় ব্যাপক আকারে ভাঙন দেখা গেল।

ভাঙনের জন্য স্থানীয় গ্রামবাসী রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ড ও বিআইডব্লিউটিএকে দোষারোপ করছেন। দুটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণেই স্থানীয় লোকজনের বসতভিটা হারাতে হচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

শুক্রবার থেকে পরিস্থিতি খারাপ দেখছি। তখন থেকে পাউবো, বিআইডব্লিউটিএকে বারবার বলছি। তারা যদি আগে থেকে সক্রিয় থাকত, তাহলে আজ এমন পরিস্থিতি হতো না।
মোস্তফা মুন্সী, চেয়ারম্যান, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ

ভাঙনে নিজের ঘর বিলীন হয়েছে, অন্যের ঘর রক্ষা করতে দৌড়ঝাঁপ করছিলেন সাবেক ইউপি সদস্য উজ্জ্বল হোসেন। তিনি বলেন, ‘ভাই সবকিছু শেষ হয়ে গেল। কাউকে বাঁচাতে পারলাম না। কতবার পাউবোকে বললাম বালুর বস্তা ফেলতে, কোনো কথাই শুনলেন না।’

স্থানীয় ইমান আলী শেখ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমরা খালি শুনে আসছি নদী শাসন হবে। কবে নদী শাসন হবে, তার হিসাব নাই। অহন পানি বাড়লে বিআইডব্লিউটিএ কিছু বস্তা ফেলে। ভালো করে ফেলতে বললে তাঁরা বলেন পাউবো বস্তা ফেলবেন। কে ফেলবেন, জানি না। তাদের ঠেলাঠেলিতে আমাগোর দফা সারা।’

স্থানীয় ২ নম্বর ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আশরাফ হোসেন বলেন, মুহূর্তের মধ্যে ভাঙনে আটটি পরিবারের বসতভিটা নদীতে চলে গেছে। আরও ৪১টি পরিবার অন্যত্র চলে যাচ্ছে।

গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা মুন্সী বলেন, ‘গত শুক্রবার থেকে পরিস্থিতি খারাপ দেখছি। তখন থেকে পাউবো, বিআইডব্লিউটিএকে বারবার বলছি। তারা যদি আগে থেকে সক্রিয় থাকত, তাহলে আজ এমন পরিস্থিতি হতো না। এখানে বালুর বস্তা না ফেলে উজানে ফেলার অনুরোধ করছি।’

default-image

বিআইডব্লিউটিএর দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী প্রকৌশলী মো. শাহ আলম বলেন, গত ২৮ জুন পর্যন্ত ভাঙন এলাকায় সাড়ে ১১ হাজার বস্তা বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলানো হয়েছে। আজ সকালে লঞ্চঘাট ও ১ নম্বর ফেরিঘাটের মাঝামাঝি এলাকার প্রায় ১০০ মিটার লম্বা ও ৪০ মিটারের মতো ইউটার্ন করে নদীতে বিলীন হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, এ মুহূর্তে জরুরি ভিত্তিতে আগে খাদ্যসহায়তা দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন। ভাঙন প্রতিরোধে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান এবং পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

এদিকে বেলা দুইটার দিকে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেন রাজবাড়ী-১ আসনের সাংসদ কাজী কেরামত আলী। তিনি বলেন, ‘এক সপ্তাহ আগেও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীকে ঘাটের পরিস্থিতি নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছিলাম। এখন তো সেই দুর্ঘটনা ঘটেই গেল। দ্রুত ব্যবস্থা নিতে এখনই তাদের অবগত করছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন