বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বেলা ১১টা থেকে যাত্রীর চাপ বাড়তে থাকে। বেলা ১১টার পর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়। বৈরী আবহাওয়ার মধ্যে যাত্রীরা ভিজে ফেরিতে উঠতে থাকে।

যশোর থেকে মোটরসাইকেল চালিয়ে নবীনগর যাচ্ছিলেন পোশাক কারখানার শ্রমিক মো. সবুজ। দৌলতদিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাটের পন্টুনে বসে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘সারা রাস্তা যানজট ছাড়াই ঘাটে এসে নামলাম। কোথাও তেমন কোনো সমস্যা হয়নি। তবে এখন সমস্যা করল বৃষ্টি। বৃষ্টির কারণে অনেকের এখন সমস্যা হচ্ছে।’

default-image

দৌলতদিয়া ঘাট সূত্র জানায়, গতকাল সোমবার সকাল ৬টা থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে ৭৯০টি বাস, ১ হাজার ৪২টি পণ্যবাহী ট্রাক, ৩ হাজার ৩৮১টি ছোট গাড়ি এবং ৭৭০টি মোটরসাইকেল পার হয়েছে। এর আগে গত রোববার সকাল থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত এই ঘাট দিয়ে ৭৭২টি বাস, ৮৯১টি পণ্যবাহি গাড়ি, ৩ হাজার ৩৮৮টি ব্যক্তিগত গাড়ি এবং ১ হাজার ৯৬টি মোটরসাইকেল পার হয়েছিল।

ফেরিতে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়
ফেরিতে ওঠার সময় ফেরি পারাপার যাত্রীদের কাছ থেকে ২৫ টাকার টিকিট ৩০ টাকায় আদায় করছে। এমনকি কোনো কোনো যাত্রীর কাছ থেকে টাকা নিয়ে টিকিট না দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। এ ধরনের অনিয়মের অভিযোগে গত শুক্র ও শনিবার গোয়ালন্দ ঘাট থানা–পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ১০ টিকিট বিক্রেতাকে আটকের পর জরিমানা আদায় করেন।

ফরিদপুর থেকে ঈদ করে বাবা অবসরপ্রাপ্ত রেলওয়ের নিরাপত্তা কর্মকর্তা আবদুল মালেকের সঙ্গে গাজীপুরের কালিয়াকৈর যাচ্ছিলেন গৃহবধূ জোসনা আক্তার। ফেরিতে ওঠার সময় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘ফরিদপুর থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা রিজার্ভ করে ঘাটে আসছি। অটোরিকশা থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে ফেরি পারাপারের টিকিট বিক্রেতারা ঘিরে ধরে আগে টিকিট কাটতে বাধ্য করেন। প্রথমে ২৫ টাকার টিকিট ৩০ টাকা করে দাবি করেন।’

ফেরি যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় এবং টাকা নিয়ে টিকিট না দেওয়া প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ঘাটে এ ধরনের অভিযোগ পেয়ে কয়েকবার অভিযান চালানো হয়। এ সময় বেশ কয়েকজনকে আটকের পর জরিমানা করে ছেড়ে দেওয়া হয়।
ফেরিঘাট এলাকার ব্যবসায়ী আলমগীর মোল্লা বলেন, ঈদের এক সপ্তাহ পর আজই প্রথম ঘাট এলাকার যানজট পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক। বেলা ১১টার পর থেকে যাত্রীর চাপ বাড়তে থাকে। তবে এ সময় হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হওয়ায় মানুষের অনেক কষ্ট হয়। বিশেষ করে, নারী ও শিশুদের অনেক ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এ সময় অনেকে বৃষ্টিতে ভিজেই ফেরিতে উঠে। আবার অনেকে বৃষ্টি থেকে রক্ষা পেতে বিভিন্ন দোকানে আশ্রয় নেয়।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয় সূত্র জানায়, ‘ঈদের পর শুধু দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে ৩৮ হাজার ৩৫৭টি যানবাহন পার হয়েছে। এর মধ্যে যাত্রীবাহী বাস ৪ হাজার ৩৪টি, পণ্যবাহী গাড়ি ৩ হাজার ৭০৩টি, ছোট বা ব্যক্তিগত গাড়ি ২২ হাজার ২৯টি এবং ৮ হাজার ৫২১টি মোটরসাইকেল। এই ঘাট দিয়ে ব্যক্তিগত গাড়ি, মোটরসাইকেলসহ নানা যানবাহনে ১ লাখ ৪৪ হাজার ৫০৬ জন যাত্রী পার হয়েছে। যানবাহন ছাড়া যাত্রী পার হয়েছে লক্ষাধিক। ঈদের পর সব মিলে প্রায় তিন লাখ যাত্রী পার হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক মো. শিহাব উদ্দিন জানান, বর্তমানে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ২০টি ফেরি চলাচল করছে। তবে আজ বৈরী আবহাওয়ার কারণে মানুষের কিছুটা ভোগান্তি বেড়েছে। তবে গত পাঁচ দিনের তুলনায় যানবাহনের চাপ কমে আসছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন