বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সরেজমিনে আজ বেলা ১১টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাট ও সড়ক ঘুরে দেখা যায়, ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুল পর্যন্ত দুই কিলোমিটার লম্বা লাইনে পণ্যবাহী ট্রাক ও যাত্রীবাহী বাসের সিরিয়াল রয়েছে। এদের মধ্যে পণ্যবাহী ট্রাকের সংখ্যাই বেশি।

গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির কারণে পন্টুন ও ফেরিঘাটের সংযোগ সড়ক কাদামাটিতে পিচ্ছিল হওয়ায় ফেরি থেকে গাড়ি লোড-আনলোডে দ্বিগুণ সময় লাগছে।

দৌলতদিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাটে গিয়ে দেখা যায়, পন্টুন ও ফেরিঘাটের সংযোগ সড়ক কাদামাটিতে পিচ্ছিল হয়ে রয়েছে। ফেরি থেকে গাড়ির মালামাল তোলা-নামানোয় দ্বিগুণ সময় ব্যয় হচ্ছে। বেলা যত বাড়ছে, ধীরে ধীরে সড়কে যানবাহনের সারি তৈরি হচ্ছে।

যশোরের বেনাপোল বন্দর এলাকা থেকে আসা নারায়ণগঞ্জগামী যন্ত্রাংশবোঝাই ট্রাকের চালক আবুল হোসেন বলেন, ‘আমি দেড় ঘণ্টা হলো ফেরির জন্য সিরিয়ালে অপেক্ষা করছি। মনে হচ্ছে ফেরিতে উঠতে আরও এক-দুই ঘণ্টা লাগবে। কিন্তু ঘাটে আজ তেমন কোনো গাড়ির চাপ নেই।’

default-image

ফেরিঘাট ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঈদের পর গত বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানীমুখী হাজারো মানুষ ফিরতে শুরু করে। অধিকাংশ যাত্রী কর্মস্থলে ফিরে গেছেন। ফলে দৌলতদিয়া ঘাট এখন অনেকটাই ফাঁকা। তবে কাদার কারণে যাত্রী ও যানবাহন চালকেরা সামান্য ভোগান্তিতে পড়েছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. শিহাব উদ্দিন বলেন, গত কয়েক দিন যাত্রী ও যানবাহনের চাপে ঘাটের অবস্থা খুব খারাপ ছিল। মোটরসাইকেলের চাপ ছিল সবচেয়ে বেশি। আজ সকাল থেকে ঘাটে যাত্রী এবং যানবাহনের চাপ নেই বললেই চলে। তবে বৈরী আবহাওয়ার কারণে যানবাহন ও ফেরি চলাচল কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে বৃষ্টিতে ফেরিঘাটের প্রতিটি সংযোগ সড়ক পিচ্ছিল হওয়ায় লোড-আনলোডে সময় বেশি লাগছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন