বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফেরিঘাটের দোকান লোকজন নিয়ে সরানোর কাজে ব্যস্ত ছিলেন জিলাল ব্যাপারী। আলাপকালে তিনি বলেন, কঠোর বিধিনিষেধে চায়ের দোকান বন্ধ রাখতে হচ্ছে। এ ছাড়া নদীতে পানি বাড়ায় সমস্যা হচ্ছে। তাই দোকান ভেঙে সরিয়ে ফেলছেন।

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি গ্রামের আরজু মণ্ডল থাকেন নবীনগর। পড়াশোনার পাশাপাশি পোশাক ডিজাইনের কাজ শিখছিলেন। গতকাল বুধবার রাতে মায়ের অসুস্থ হয়ে পড়ার খবর পেয়ে আজ সকাল ছয়টায় রওনা করেন।

নবীনগর থেকে পাটুরিয়া ঘাট পর্যন্ত আসতে লেগেছে প্রায় এক হাজার টাকা। আজ সকাল ১০টার দিকে দৌলতদিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাটে পাটুরিয়া থেকে আসা রো রো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরে করে ঘাটে নামেন। আরজু বলেন, বাড়িতে বাবা ছাড়া কেউ নেই। মা খুব অসুস্থ। গতকাল রাতেই তাঁকে কুষ্টিয়া ডায়াবেটিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আরজু মণ্ডলের সঙ্গে ছিলেন খালাতো ভাই বায়েজিদ শেখ। তিনি বলেন, বিপদে না পড়লে কেউ শখ করে বের হয় না। তিনি আরও বলেন, ‘নবীনগর থেকে পাটুরিয়া ঘাট পর্যন্ত আসতে সময় লাগে সর্বোচ্চ এক ঘণ্টা। ভাড়ায় খরচ হয় মাত্র ১০০ টাকা। অথচ আজ আমরা দুই ভাই সকাল ছয়টায় রওনা করেছি। সাড়ে চার ঘণ্টা সময় নিয়ে সারা রাস্তা কিছুক্ষণ ট্রাকে, কিছুক্ষণ অটোরিকশা, আর কিছু পথ হেঁটে আসতে হয়েছে।’

ফেরিঘাট এলাকায় টহলরত গোয়ালন্দ ঘাট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান আকন্দ বলেন, ‘ভোর থেকে ডিউটিতে আছি। পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছি। ভোরে কিছু অটোরিকশা দেখেছিলাম। তাদের বুঝিয়ে পাঠিয়ে দিয়েছি। ঘাট এলাকায় এখন পুলিশ, সাংবাদিক ছাড়া কাউকে দেখছি না।’

দৌলতদিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাট এলাকায় কর্তব্যরত বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) টার্মিনাল তত্ত্বাবধায়ক শওকত আলী বলেন, বর্তমানে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ১৪টি ফেরি চলছে। পণ্যবাহী ও জরুরি গাড়ি পারাপারে সব কটি ফেরি চালু রাখা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন