লকডাউনের মধ্যে কাল রোববার থেকে দোকানপাট ও বিপণিবিতান খোলায় ঢাকামুখী মানুষ ছুটছেন। আজ শনিবার দুপুরে পাটুরিয়া থেকে এই ফেরিটি রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ার ৩ নম্বর ঘাটে ভিড়লে ঢাকামুখী মানুষ ফেরিতে উঠতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন
লকডাউনের মধ্যে কাল রোববার থেকে দোকানপাট ও বিপণিবিতান খোলায় ঢাকামুখী মানুষ ছুটছেন। আজ শনিবার দুপুরে পাটুরিয়া থেকে এই ফেরিটি রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ার ৩ নম্বর ঘাটে ভিড়লে ঢাকামুখী মানুষ ফেরিতে উঠতে হুমড়ি খেয়ে পড়েনছবি: প্রথম আলো

দুই সপ্তাহ আগে সরকার কঠোর লকডাউন ঘোষণা করতেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ রাজধানী ছাড়তে শুরু করেছিল। যানবাহন বন্ধ থাকলেও নানা উপায়ে হাজার হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পড়ার ঝুঁকি নিয়ে নিজ বাড়িতে ফেরে। লকডাউনের মধ্যে কাল রোববার থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শপিং মল, দোকানপাট খোলার সিদ্ধান্ত থাকায় আবার রাজধানীমুখী হতে শুরু করেছে এসব মানুষ।

সারা পথ ছোট ছোট যানবাহনে ভিড় সামলে এসব মানুষ ছুটছে। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই ছিল না। অনেকের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি। থাকলেও তা ছিল থুতনির নিচে বা কারও পকেটে। আবার ফেরিগুলোতে একজন আরেকজনের সঙ্গে গা ঘেঁষে ফেরিতে পারাপার হচ্ছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানীর সড়ক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাটে আজ শনিবার দুপুরে এমনই চিত্র দেখা যায়।

সারা পথ ছোট ছোট যানবাহনে ভিড় সামলে এসব মানুষ ছুটছে। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই ছিল না। অনেকের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি।

এ সময় দেখা যায়, ঘাটে কয়েকটি বড় ফেরি নোঙর করে রয়েছে। ছোট ফেরিগুলোতে আগত যানবাহনের সঙ্গে মোটরসাইকেল ও সাধারণ যাত্রীরা উঠে নদী পাড়ি দিচ্ছে। প্রতিটি ফেরিতে যানবাহনের সঙ্গে মানুষের ভিড় দেখা যায়। পাটুরিয়া থেকে যেসব ফেরি দৌলতদিয়া ঘাটে এসে নোঙর করছে, সেসবে যানবাহনের সঙ্গে যাত্রীদের ভিড় দেখা যায়। তবে দৌলতদিয়া ঘাট থেকে যেসব ফেরি ছাড়ছে, প্রতিটি ফেরিতে ঢাকামুখী যাত্রীদের ভিড় ছিল সবচেয়ে বেশি। যাদের অধিকাংশ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের শ্রমিক ও ব্যবসায়ী।

default-image

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর এলাকা থেকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে ঢাকায় ছুটছেন মো. রাজু। আলাপকালে তিনি বলেন, সাভারের আশুলিয়া জামনগর এলাকায় তাঁর নিজের পোশাকের দোকান রয়েছে। লকডাউন ঘোষণা হলে তিনি গ্রামের বাড়ি চলে আসেন। কাল থেকে দোকানপাট খোলার সিদ্ধান্ত হওয়ায় তিনি ঢাকার দিকে ছুটছেন। কয়েক দিন পরই ঈদ। গণপরিবহন এখনো চালু না হওয়ায় অনেক কষ্টে ভেঙে ভেঙে ইজিবাইকে করে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে আসতে হয়েছে। তবুও ভিড় ঠেলে করোনা ঝুঁকি নিয়েই যেতে হচ্ছে। কারণ, এখন যদি কিছু বেচাকেনা হয়। দোকানের সব কর্মচারীকেও আসতে বলেছেন।

বিজ্ঞাপন

কুষ্টিয়ার গ্রামের বাড়ি থেকে মো. ইমরান যাচ্ছেন ঢাকার নিউমার্কেট এলাকার দোকানে। সেখানে তিনি একটি বিপণিবিতানে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। দুপুরে দৌলতদিয়ার ৩ নম্বর ফেরিঘাটে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘মহাজন শুক্রবার রাতেই ফোন করেছেন যেতে। রোববার থেকে বিপণিবিতান খোলার সিদ্ধান্ত হওয়ায় আজই দোকানে পৌঁছতে বলেছেন। দোকানে গিয়ে সব ঝাড়পোছ করে বেচাকেনা শুরু করতে হবে। আমার মতো অধিকাংশ মানুষ ঢাকা, সাভারসহ বিভিন্ন অঞ্চলের দোকানের কর্মচারী বা দোকানমালিক। লকডাউনের কারণে সব বন্ধ করে দিয়ে যে যার মতো গ্রামের বাড়ি চলে এসেছিল। এখন আবার ফিরে যাচ্ছে সবাই।’

default-image

ফেরিঘাটে কর্তব্যরত বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) এক টার্মিনাল তত্ত্বাবধায়ক জানান, গতকাল থেকে রাজধানীমুখী মানুষের চলাচল অনেক বেড়েছে। আগে যেখানে দুই ঘাটে দুটি ছোট ফেরি শুধুমাত্র জরুরি গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স পার করার জন্য প্রস্তুত রাখা হতো, সেখানে বর্তমানে মাধবীলতা, হাসনা হেনা, শাপলা শালুক, রজনীগন্ধা, চন্দ্রমল্লিকা ও বনলতা নামের ছয়টি ইউটিলিটি (ছোট) ফেরি চলছে। ঘাটে সাধারণ পরিবহন ছাড়া যেসব গাড়ি আসছে, তারাই পার হতে পারছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) মো. ফিরোজ শেখ বলেন, ছোট-বড় মিলে মোট ১৭টি ফেরির মধ্যে মাঝারি আকারের ফেরি ‘ঢাকা’ যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বিকল হয়ে আছে। বাকি ১৬টি ফেরির মধ্যে দিনের বেলায় জরুরি গাড়ি পারাপারের জন্য সব কটি (ছয়টি) ইউটিলিটি (ছোট) ফেরি চালু রাখা হয়েছে। সন্ধ্যার পর থেকে সব কটি ফেরি চলাচল করে। কাল থেকে দোকানপাট, বিপণিবিতান খোলার খবরে গতকাল থেকে ঢাকামুখী যানবাহন এবং যাত্রীর চাপ বেড়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন