বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নৌকার এমন ভরাডুবির কারণ জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী তারিকুল ইসলাম আজ সোমবার মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘কয়েকটি কারণে ফলাফল এমন হয়েছে। এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সমর্থকেরা কয়েকটি ধারায় বিভক্ত। তাঁর মধ্যে যিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন, তিনি বড় একটি পক্ষের নেতৃত্ব দেন। এ ছাড়া বর্তমান চেয়ারম্যানের একটি পক্ষ রয়েছে। এই নির্বাচনে জেলার নেতারা সহযোগিতা করলেও বর্তমান চেয়ারম্যানের পক্ষের লোকজন প্রতিহিংসামূলকভাবে নৌকার বিরোধিতা করেছেন। এর সঙ্গে বিএনপির ভোটগুলোও প্রতিপক্ষের পক্ষে গেছে।’

উপজেলার শ্রীকোল ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান কুতুবুল্লাহ হোসেন মিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি। ২০১১ সালের পর দ্বিতীয়বারের মতো শ্রীকোল ইউপিতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন তিনি। তাঁর বাবা শ্রীপুর আঞ্চলিক বাহিনীর অধিনায়ক। তাঁর বাবা এই ইউনিয়নে ২৪ বছর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। নির্বাচনের প্রচারের সময় মাগুরা–১ আসনের সাংসদ সাইফুজ্জামানের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে আলোচনার জন্ম দেন এই প্রার্থী। এ ছাড়া আগে থেকে রাজনৈতিক প্রতিযোগিতার লড়াইয়ের কারণে এই ইউনিয়নের ফলাফলের দিকে সবার নজর ছিল।

শ্রীপুরে অন্য ইউনিয়নগুলোর মধ্যে কাদিরপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন এক সাংবাদিক। আইয়ুব হোসেন খান নামে ওই সাংবাদিক জাতীয় একটি পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। অন্য ছয়টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। তাঁরা হলেন গয়েশপুরে হালিম মোল্যা, আমলসারে সেবানন্দ বিশ্বাস, শ্রীপুর সদরে মো. মসিয়ার রহমান, দ্বারিয়াপুরে আবদুস সবুর, সব্দালপুরে পান্না খাতুন ও নাকোলে হুমাউনুর রশিদ মুহিত।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন