বিজ্ঞাপন

এ সময় প্রতিবেশী রাসেল, মোহাম্মদ ও সাহাজুদ্দিনের ছোট ভাই মোজাম্মেল হক মজনুকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে সাহাজুদ্দিন ও তাঁর স্ত্রী রহিমা বেগম তাঁদেরও লাঞ্ছিত করেন এবং মারপিট করেন। পরে স্থানীয় লোকজন মজনুকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। পরে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজে নেওয়ার পরামর্শ দেন। তবে রংপুরে পৌঁছানোর আগেই পথে মজনুর মৃত্যু হয়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে পাঠায়।

পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন, নদী থেকে নুড়িপাথর উত্তোলনকে কেন্দ্র করে মারপিটের ঘটনায় মজনু হোসেন মারা যান। পুলিশ দুই ব্যক্তিকে আটক করেছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা প্রস্তুতি চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন