উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, ধলাই নদের তিনটি অংশে পৃথক তিনটি বালুমহাল রয়েছে। এ বছর একটি ইজারা দেওয়া হয়েছে। বাকি দুটি ইজারাবহির্ভূত। ইজারাধীন বালুমহাল থেকে বালু উত্তোলনের কথা বলে বালু ব্যবসায়ীদের একটি দল ইজারাবিহীন বালুমহাল থেকে বালু তুলছিল। ৩ জুলাই টাস্কফোর্সের অভিযানে হাতেনাতে ৩টি নৌযান ও ৭টি প্রতিষ্ঠানের বালুর কারবারিকে আটক করে ৫০ হাজার টাকা করে মোট ৫ লাখ টাকার অর্থদণ্ড করা হয়েছিল। এ নিয়ে প্রথম আলোয় ৪ জুলাই ‘নদে বালু তোলার মচ্ছব’ শিরোনামে একটি সচিত্র প্রতিবেদন ছাপা হয়েছিল।

অভিযানের পর আবার অবৈধভাবে বালু তোলার মচ্ছব শুরু হওয়ায় শুক্রবার ঢালারপার বাঁধের মুখে ‘ঢালারপার মানবকল্যাণ পরিষদ’ আয়োজিত মানববন্ধন ও সমাবেশে অংশ নেন এলাকাবাসী। পূর্ব ইসলামপুর ইউনিয়ন শাখা আওয়ামী লীগের সভাপতি মল্লুক হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল মিয়া, ঢালারপারের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমদ, আবু সিদ্দিক, তোফাজ্জল হোসেন ও সিরাজুল হক বক্তব্য দেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ধলাই নদের ঢালারপার এলাকাটি বালুমহাল এলাকাভুক্ত নয়। এরপরও সেখান থেকে বালু উত্তোলন করায় ৩ জুলাই উপজেলা প্রশাসন অভিযান চালিয়েছিল। এই অভিযানের পর ধীরে ধীরে আবার আগের অবস্থায় ফিরে গেছে পুরো এলাকা। বাল্কহেড ও ইঞ্জিনচালিত নৌকায় খননযন্ত্র (ড্রেজার) স্থাপন করে যত্রতত্র বালু তোলা হচ্ছে। এতে করে ঢালারপার এলাকার একটি বন্যা প্রতিরোধ বাঁধসহ পূর্ব ইসলামপুর ইউনিয়নের ধলাইতীরের অন্তত অর্ধশতাধিক গ্রামের ভাঙনের মুখে পড়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এলাকাবাসী ঢালারপার এলাকায় প্রশাসনের সার্বক্ষণিক নজরদারির আহ্বান জানান।

ড্রেজার দিয়ে বালু তোলায় ঢালারপার বাঁধ এলাকা ক্ষতির মুখে বলে জানিয়েছেন বাঁধ এলাকার বাসিন্দারা। তাঁরা বলেছেন, ৩ জুলাই অভিযানে যেসব নৌযান ও প্রতিষ্ঠানকে অর্থদণ্ড করা হয়েছিল, সেগুলোর সঙ্গে আরও নতুন নৌযান ও প্রতিষ্ঠান যুক্ত হয়েছে। এ নিয়ে প্রতিদিনই এলাকাবাসীর সঙ্গে বচসা হচ্ছে। এতে করে করোনাকালে ইউনিয়নজুড়ে একধরনের উত্তপ্ত অবস্থা বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুমন আচার্য প্রথম আলোকে বলেন, ইজারাবহির্ভূত স্থান থেকে বালু উত্তোলন সম্পূর্ণ অবৈধ। এ জন্য ৩ জুলাই অভিযানে অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। দণ্ডপ্রাপ্ত সেসব প্রতিষ্ঠান যদি ফের এই অবৈধ কাজে যুক্ত হয়, তাহলে আরও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। বালু উত্তোলনে শ্রমিকদের যাঁরা অবৈধ কাজে যুক্ত আছেন, তাঁদের খোঁজে অভিযান চালানো হবে।