মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গতকাল বেলা দুইটার দিকে ওই নারী কর্মকর্তা হাসপাতালে যান। এ সময় হাসপাতালের ভেতরে জোবায়ের, মেহেদী ও ইমন ঘোরাফেরা করছিলেন। একপর্যায়ে তাঁরা ওই নারী কর্মকর্তাকে উদ্দেশ করে আপত্তিকর গান শুরু করেন এবং নানা মন্তব্য করতে থাকেন। এ সময় ওই নারী মুঠোফোনে এ দৃশ্য ধারণের চেষ্টা করেন।

বিষয়টি টের পেয়ে তিন তরুণ হাসপাতালের টিকাদানকেন্দ্রের তাবুর কাছে চলে যান। ওই তাবুর পাশে তাঁদের চার সহযোগী বসে ছিলেন। কিছুক্ষণ পর একটি মোটরসাইকেলে করে ওই তিন তরুণ হাসপাতাল থেকে বের হয়ে যান। এ সময় তাবুর ভেতরে বসে থাকা চারজন ওই কর্মকর্তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে।

ওই নারী কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, ‘এই হাসপাতালে অনেক নারী কর্মকর্তা–কর্মচারী কাজ করছেন। একজন শীর্ষ কর্মকর্তা হয়েও আমাকেই যদি এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়, তাহলে অন্যান্যদের নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে আমি শঙ্কিত। ঘটনার পরপরই থানায় মামলাসহ সংশ্লিষ্ট সব দপ্তরে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।’

ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আতিকুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, বিষয়টি খুবই গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ভুক্তভোগীর করা মামলায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করে তাঁদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকিদেরও দ্রুত চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন