বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিসচা ধামরাই উপজেলা শাখার সভাপতি মো. নাহিদ মিয়ার সভাপতিত্বে মানববন্ধন চলাকালে ‘অঙ্কুর পরিবার’–এর সভাপতি মনজুরুল হক, ‘রক্ত সৈনিক ধামরাই’–এর সভাপতি নাহিদ খান, ‘সচেতন নাগরিক সমাজ ধামরাই’–এর আহ্বায়ক ইমরান হোসেন, ‘ইচ্ছে আলো’–এর সভাপতি জাহিদ হোসেন প্রমুখ বক্তব্য দেন। তাঁরা মহাসড়কে ফিটনেস ও লাইসেন্সবিহীন যানবাহন চলাচল বন্ধসহ ৯টি দাবি জানান।

দাবির মধ্যে আছে মহাসড়কের পাশে অবৈধ পার্কিং বন্ধ, মহাসড়কে তিন চাকার বাহন চলাচল বন্ধ, হাইওয়ে পুলিশের নজরদারি বৃদ্ধি, মহাসড়কের পাশে বাজার/বাসস্ট্যান্ড/শিল্পকারখানার অন্তর্গত অংশে যানবাহনের সর্বোচ্চ গতিনির্দেশক চিহ্ন ও বাস্তবায়ন, সবার সচেতনতা বৃদ্ধিতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, সড়ক আইন অমান্য করলে চালকের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ ইত্যাদি। এ ছাড়া দিনে মহাসড়কে সব ট্রাক, ডাম্প ট্রাক চলাচল বন্ধসহ মহাসড়কে বিশৃঙ্খলতার মাধ্যমে নৈরাজ্য সৃষ্টিকারী পরিবহনগুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করা অঙ্কুর পরিবারের সভাপতি মঞ্জুরুল হক বলেন, ‘সামান্য কিছু পদক্ষেপের অভাবে চোখের সামনে রাস্তায় তাজা প্রাণ প্রতিনিয়তই ঝরে যাবে, এটা মেনে নেওয়া যায় না। আমরা চাই, দ্রুত এর সমাধান হোক। সবার জন্য নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত হোক।’

নিসচা ধামরাই উপজেলা শাখার সভাপতি মো. নাহিদ মিয়া বলেন, ‘গত বছর ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাই উপজেলায় মোট ৮০টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৯ জন নিহত হন। আহত হন ১৫৪ জন। এ বছর ইতিমধ্যে সাড়ে ৮ মাসে ১১৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১৭৮ জন। এটা গভীর উদ্বেগের। আমরা সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে ৯টি দাবি জানাচ্ছি, যা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে সড়কে নৈরাজ্য দূর হবে এবং নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন