নওগাঁর আত্রাইয়ে একই দিন পৃথক জায়গা থেকে নিখোঁজ দুই বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে আবদুর রহমান (৬৩) আট দিন আগে এবং অন্যজন হাজি রফিকুল ইসলাম গত শুক্রবার রাতে বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হন। এ ঘটনায় উভয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে আত্রাই থানায় পৃথক সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছিল।

রোববার সকালে উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের কচুয়া বিল থেকে আবদুর রহমানের এবং বেলা ১১টার দিকে ভোঁপাড়া ইউনিয়নের সোনাইডাঙ্গা ইসরাফিল আলম সেতুর পাশের খাল থেকে হাত, পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় রফিকুল ইসলামের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। আবদুর রহমান ও রফিকুল ইসলামের বাড়ি উপজেলার বাঁকা গ্রামে। তবে রফিকুল ইসলাম উপজেলার খোলাপাড়া এলাকায় পরিবার নিয়ে বাস করতেন।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আবদুর রহমান ৪ অক্টোবর রোববার বিকেলে বাড়ি থেকে আত্রাই যাওয়ার কথা বলে বের হয়ে যান। এরপর তিনি আর বাড়ি ফিরে আসেননি। পরিবারের লোকজন অনেক সন্ধান করে কোথাও তাঁর সন্ধান না পেয়ে আত্রাই থানায় জিডি করেন। রোববার সকালে উপজেলার কচুয়া বিলে একটি লাশ ভাসমান অবস্থায় দেখে স্থানীয় ব্যক্তিরা থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। পরে আবদুর রহমানের পরিবারের সদস্যরা তাঁর লাশ শনাক্ত করেন।

বিজ্ঞাপন

অপর দিকে রফিকুল ইসলাম শুক্রবার এশার নামাজ পড়ার পর খোলাপাড়া মসজিদে তাবলিগ জামাতের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন। একসময় তাঁর মুঠোফোনে একটি কল এলে তিনি ১০ মিনিট পরে আসছি বলে মসজিদের মুসল্লিদের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে বাইরে চলে যান। অনেক রাত হলেও তিনি মসজিদ বা তাঁর নিজ বাসায় ফেরেননি। দীর্ঘ সময় পর্যন্ত বাসায় না পৌঁছায় এবং তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়ায় পরিবারের লোকজন তাঁর সন্ধান করেন। এ ঘটনায় রফিকুলের স্ত্রী দৌলতুন্নেছা শনিবার সকালে আত্রাই থানায় একটি জিডি করেন। রোববার বেলা ১১টার দিকে পুলিশ সোনাইডাঙ্গা ইসরাফিল আলম সেতুর পাশের খাল থেকে হাত, পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় রফিকুলের লাশ উদ্ধার করে। রফিকুলের ছোট ভাই সিদ্দিকুর রহমান মুঠোফোনে প্রথম আলোর কাছে অভিযোগ করেন, ‘আমার ভাতিজি ও জামাতার সঙ্গে ভাইয়ের টাকা লেনদেন নিয়ে বিরোধ চলছে। এ কারণে আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে।’

আত্রাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসলিম উদ্দিন এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ দুটি হত্যাকাণ্ডের কারণ উদ্‌ঘাটনে কাজ করছে পুলিশ। মামলার প্রস্তুতি চলছে। লাশ দুটি উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0