বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইমাম-উল ইসলাম বলেন, ‘হামলাকারীরা নৌকার স্লোগান দিয়ে আমার বাড়িঘর ভাঙচুর করে। এ সময় হামলাকারীরা বাড়ির প্রতিটি কক্ষে গিয়ে ভাঙচুর ও তছনছ করে এবং মালামাল লুট করে। হামলাকারীরা ঘরে টাঙানো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিও ভাঙচুর করে।’ তিনি এ হামলার ঘটনায় নৌকার প্রার্থীর নাম উল্লেখ করে নগরকান্দা থানা ও রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানান।

কোদালিয়া শহীদনগর ইউনিয়ন ইউপি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক খোন্দকার জাকির হোসেন। ওই ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ইউনিয়ন যুবলীগের সহসভাপতি ইমাম-উল ইসলাম।
default-image

নৌকার প্রার্থী খোন্দকার জাকির হোসেন বলেন, ‘আমার সমর্থকেরা ইমাম-উল ইসলাম বাড়িতে হামলা করেনি। এটি একটি ষড়যন্ত্র। ইমাম–উল ইসলাম দলের কাছে মনোনয়ন চেয়েছিলেন, কিন্তু পাননি। আমাদের লোকজন প্রচারণায় গেলে ইমাম-উল ইসলাম মিছিল নিয়ে বাধা দেন। তিনি তখন হুমকি দিয়ে বলেন, নৌকার কোনো প্রচারণা এখানে হবে না। তাঁরা আমার তিন সমর্থককে পিটিয়ে আহত করেন। পরে আমার পক্ষের লোকজন আহতদের উদ্ধার করেন। ইমাম-উল ইসলাম মামলা দেওয়ার জন্য নিজেরা নিজেদের ঘর তছনছ করেন, তাঁরা নিজেরাই বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি মেঝেতে ফেলে ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন। পুরো বিষয়টিই ষড়যন্ত্রমূলক।’

নগরকান্দা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সুমিনুর রহমান বলেন, ঘটনার সময় পুলিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় দুই পক্ষ থানায় অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন