default-image

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় গরুচোর সন্দেহে এলাকাবাসী গণপিটুনি দিলে এক ব্যক্তি নিহত হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের শেখের মাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই ব্যক্তির নাম কাজী উজ্জ্বল হোসেন (৩৫)। তিনি নন্দীগ্রাম উপজেলার ভরতেঁতুলিয়া রায়পাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানায়, গতকাল রাত সাড়ে ১২টার দিকে শেখের মাড়িয়া গ্রামের কৃষক বেলাল হোসেনের গোয়ালঘরের তালা কেটে ভেতরে ঢুকে গরু চুরির চেষ্টা করে একদল চোর। বাড়ির মালিক টের পেয়ে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে চোরদের ধাওয়া দেন। এ সময় উজ্জ্বল হোসেন নামের একজনকে আটক করে গরুচোর সন্দেহে পিটুনি দেন এলাকাবাসী। এতে ঘটনাস্থলেই উজ্জ্বল হোসেন মারা যান।

ভাটরা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোরশেদুল বারী বলেন, সম্প্রতি এলাকায় কয়েকটি গরু চুরির ঘটনা ঘটে। শেখের মাড়িয়া গ্রামে গত রাতে গরু চুরি করতে এসে একজন ধরে পড়লে গ্রামবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে তাঁকে পিটুনি দেন। এতে ওই ব্যক্তি নিহত হন। তিনি এলাকার চিহ্নিত গরুচোর হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

সম্প্রতি এলাকায় কয়েকটি গরু চুরির ঘটনা ঘটে। শেখের মাড়িয়া গ্রামে গত রাতে গরু চুরি করতে এসে একজন ধরে পড়লে গ্রামবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে তাঁকে পিটুনি দেন। এতে ওই ব্যক্তি নিহত হন।
মোরশেদুল বারী, চেয়ারম্যান, ভাটরা ইউনিয়ন পরিষদ, নন্দীগ্রাম
বিজ্ঞাপন

তবে এ বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে উজ্জ্বল হোসেনের বড় ভাই কাজী জুয়েল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর ছোট ভাই গতকাল সন্ধ্যায়ও বাড়িতে ছিলেন। কেউ তাঁকে ডেকে নিয়ে গরু চুরির অপবাদ দিয়ে হত্যা করেছে বলে তাঁরা সন্দেহ করছেন।

কাজী জুয়েল দাবি করেন, ‘গরু চুরি করতে উজ্জ্বল মাড়িয়া গ্রামের কৃষক বেলাল হোসেনের বাড়িতে গেছেন—এমন অভিযোগ সঠিক নয়। তা ছাড়া সে যদি কোনো অপরাধ করেও থাকে, তাকে পুলিশে দিতে পারতেন তাঁরা। কিন্তু শুধু গরুচোর সন্দেহের ওপর তাকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এটা পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলেই মনে হচ্ছে। এখন পরিবারের পক্ষ থেকে আমি নিজে বাদী হয়ে হত্যা মামলা করব।’

জানতে চাইলে নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শওকত কবীর প্রথম আলোকে বলেন, গণপিটুনিতে নিহত উজ্জ্বল নামের ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে থানায় একাধিক চুরির মামলা রয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল ছয়টার দিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য পড়ুন 0