default-image

ঢাকার নবাবগঞ্জে সংখ্যালঘু এক বিধবা নারীকে দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে সাহেদ আলী (৫০) ও বাহার মাদবর (৪০) নামের দুজনকে নবাবগঞ্জ থানা-পুলিশ আটক করেছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কৈলাইল ইউনিয়নের তেলেঙ্গা গ্রাম থেকে তাঁদের আটক করা হয়। সাহেদ কৈলাইল ইউনিয়নের তেলেঙ্গা গ্রামের মৃত শেখ সুলতানের ছেলে ও বাহার মাদবর একই এলাকার খৈমদ্দিনের ছেলে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সোমবার বেলা একটায় তেলেঙ্গা গ্রামে খুদু মেম্বারের বাগানের পাশে সাহেদ আলী ও বাহার মাদবর ওই বিধবা নারীকে ধর্ষণ করেন। এলাকাবাসী বিষয়টি নবাবগঞ্জ থানা-পুলিশকে জানায়। সংবাদ পেয়ে আজ মঙ্গলবার পুলিশ অভিযুক্ত দুই ধর্ষককে আটক করে।

সোমবার বেলা একটায় তেলেঙ্গা গ্রামে খুদু মেম্বারের বাগানের পাশে সাহেদ আলী ও বাহার মাদবর ওই বিধবা নারীকে ধর্ষণ করেন। সংবাদ পেয়ে আজ মঙ্গলবার পুলিশ অভিযুক্ত দুই ধর্ষককে আটক করে।

কৈলাইল ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য বিজয় বাড়ৈ বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার নারী নৌকা পারাপার করে জীবিকা নির্বাহ করেন। তাঁর ওপর যে পাশবিক তাণ্ডব চালিয়েছে, তা খুবই দুঃখজনক। আমরা এলাকাবাসী দোষীদের বিচার চাই। যারা এ ঘটনায় জড়িত, তাদের দ্রুত শাস্তি দেওয়া হোক।’

নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, এলাকাবাসীর ধর্ষণের বিষয়টি জানালে আজ দুপুরে তেলেঙ্গা গ্রামে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত দুই ধর্ষককে আটক করা হয়। ভুক্তভোগী নারীকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন