বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, নাটঘর গ্রামের আবু নাসের গোষ্ঠীর লোকজনের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেমের গোষ্ঠীর বিরোধ রয়েছে। এই ইউনিয়নে এখনো নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়নি। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল কাশেমের ছেলে এরশাদুল হক, স্থানীয় আবু নাসেরসহ কয়েকজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছিলেন।

স্থানীয় সূত্রে আরও জানা গেছে, গতকাল রাতে বাদল সরকারকে নিয়ে নাটঘর ইউনিয়নের কুড়িঘর বাজারের পাশে ওয়াজ মাহফিলে যান এরশাদুল হক। সেখান থেকে তাঁরা মোটরসাইকেলে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। বাড়ি ফেরার পথে রাস্তায় দুর্বৃত্তরা এরশাদুল হক ও বাদলকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই বাদল মারা যান। গুরুতর আহত এরশাদুলকে উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয় লোকজন। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসক। ঢাকা নেওয়ার পর এরশাদুল মারা যান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. আলী হায়দার আল রাজী ওসমানী প্রথম আলোকে বলেন, আহত এরশাদুলকে হাসপাতালে আনা হয়। তাঁর প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাঁকে ঢাকায় পাঠানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল।

এরশাদুলের চাচাতো ভাই হামিদুল হক বলেন, এরশাদুল, তাঁর বাবা আবুল কাশেম ও গ্রামের আবু নাসের ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। ওয়াজ মাহফিল থেকে বাড়ি ফেরার পথে আবু নাসেরের এক ছেলে ও তাঁর গোষ্ঠীর লোকজন এরশাদুল ও বাদলকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে বাদল ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

এ বিষয়ে আবুল কাশেম বলেন, স্থানীয় কুড়িঘর বাজারের পাশে ওয়াজ মাহফিল থেকে ফেরার পথে দুটি মোটরসাইকেল করে সাত থেকে আটজন দুর্বৃত্ত এরশাদ ও বাদলকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে বাদল ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং তাঁর ছেলে ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুর রশিদ প্রথম আলোকে বলেন, রাস্তা ফাঁকা ছিল। রাতের অন্ধকারে দুর্বৃত্তরা একা পেয়ে বাদল ও এরশাদুল হকের ওপর হামলা করে। বাদলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার কোনো প্রত্যক্ষদর্শী বা সাক্ষী পাওয়া যাচ্ছে না। হত্যাকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের আটকের চেষ্টা চলছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন