বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিদিশা এরশাদ বলেন, ‘এরিক (এরিক এরশাদ) আমাদের সঙ্গে আছে, মানে লাঙ্গলও আমাদের সঙ্গে থাকবে। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর এরিককে তার চাচা জি এম কাদের তিন মাস ঘরে আটকে রেখেছিল। তবে দলের সিনিয়র নেতা কাজী মো. মামুনুর রশিদের মাধ্যমে ছেলেকে ফেরত পেয়েছি।’

এ সময় বিদিশা এরিক এরশাদঘোষিত জাতীয় পার্টির মহাসচিব কাজী মো. মামুনুর রশিদ সম্পর্কে বলেন, ‘আপনাদের সন্তান কাজী মো. মামুনুর রশিদ এখন সারা দেশের নেতা। এরশাদের রেখে যাওয়া জাতীয় পার্টির দায়িত্বে আছেন তিনি। সারা দেশে জাতীয় পার্টি পুনর্গঠনে তিনি আমার সাথে হাত মিলিয়ে কাজ করার জন্য ওয়াদাবদ্ধ হয়েছেন।’

অনুষ্ঠানে মামুনুর রশিদ বলেন, এরশাদ পরিবারকে নিয়ে যে নোংরা খেলা হচ্ছে, জাতীয় পার্টির নেতা–কর্মীরা তা কখনো মেনে নিতে পারেন না। রাতের অন্ধকারে যাঁরা জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হন, তাঁদের কাছে এরশাদের জাতীয় পার্টি নিরাপদ নয়। জাতীয় পার্টি নিরাপদ রওশন এরশাদের কাছে। বিদিশা এরশাদ, সাদ ও এরিক এরশাদের কাছে পার্টি নিরাপদ।

এ সময় মামুনুর রশিদ আগামী ডিসেম্বরে জাতীয় পার্টি সব নেতা–কর্মীকে সঙ্গে নিয়ে জাতীয় কাউন্সিল করার ঘোষণা দেন। অনুষ্ঠানে উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রজব আলী মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক মন্ত্রী ও বিএলডিপি চেয়ারম্যান নাজিমউদ্দিন আল আজাদ, সাবেক সাংসদ জাফর ইকবাল সিদ্দীকি, জাতীয় গণতান্ত্রিক মানবিক পার্টির চেয়ারম্যান আক্তার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে একই দিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নবীনগর প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয় পার্টির নাম ও পদ–পদবি ব্যবহার এবং নবীনগরে বিদিশা ও কাজী মামুনের আগমনের প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নবীনগর উপজেলা জাতীয় যুব সংহতি ও এর অঙ্গসংগঠন এ মানববন্ধনের আয়োজন করে‌।
মানববন্ধনে উপজেলা যুব সংহতির আহ্বায়ক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, নবীনগর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে কাজী মামুনুর অবৈধভাবে জাতীয় পার্টি–সম্পর্কিত বিলবোর্ড, পোস্টার লাগিয়ে বেড়াচ্ছেন। কিন্তু দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদের দীর্ঘদিন আগেই কাজী মামুনুরকে দল থেকে বহিষ্কার করেছেন। অথচ কাজী মামুনুর নিজেকে জাতীয় পার্টির মহাসচিব পরিচয় দিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এদিকে উপজেলা জাতীয় পার্টির সদস্যসচিব এ টি এম আবদুল্লাহ বলেন, নবীনগরে কাজী মামুনুর ও বিদিশার কোনো ঠাঁই হবে না। নবীনগরে জাতীয় পার্টিসহ অঙ্গসংগঠনের নেতারা তাঁদের অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছে। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাবেক স্ত্রী হওয়ায় বিদিশা বিভিন্ন স্থানে এরশাদের নাম ব্যবহার করে অপকর্ম করে আসছেন, যা জাতীয় পার্টি ও দলের নেতাদের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। এ সময় তিনি বিদিশা ও কাজী মামুনুরের সব পোস্টার-ব্যানার নবীনগরের মাটি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন