default-image

নরসিংদীতে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও পাঁচজনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন মোট ১ হাজার ৭০০ জন। তবে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর এ পর্যন্ত সুস্থতার হার ৮৬ দশমিক ২৪ শতাংশ। আজ রোববার দুপুরে এসব তথ্য জানিয়েছেন সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইব্রাহিম।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, গত ৭ এপ্রিল নরসিংদীর পলাশ উপজেলায় প্রথম এক ব্যক্তির করোনা শনাক্ত হয়। এরপর প্রথম ৫৩ দিনে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ৫০০ ছাড়ায়। পরের ৫০০ ব্যক্তি আক্রান্ত হতে সময় লাগে মাত্র ১৩ দিন। আরও ২২ দিন সময় লাগে পরবর্তী ৫০০ ব্যক্তি আক্রান্ত হতে। তবে সর্বশেষ ২০০ জন ব্যক্তি আক্রান্ত হতে সময় লাগল ১৬ দিন।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২৪ জুলাই কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত সন্দেহে মোট ৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য রাজধানীর মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথে (আইপিএইচ) পাঠানো হয়। গতকাল শনিবার রাতে সেখান থেকে পাঠানো এসব নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে পাঁচজন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হন। আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সদর উপজেলা ও শিবপুর উপজেলার দুজন করে এবং বেলাব উপজেলার একজন রয়েছেন।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, গতকাল পর্যন্ত জেলার ৬টি উপজেলা থেকে মোট ৮ হাজার ৪৪৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮ হাজার ৪১৮ জনের নমুনার ফলাফল পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ১ হাজার ৭০০ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হয়েছে। আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সদর উপজেলায় ১ হাজার ৩৮ জন, শিবপুরে ১৭০ জন, পলাশে ১৩৯ জন, রায়পুরায় ১২৯ জন, বেলাবতে ১১০ জন ও মনোহরদীতে ১১৪ জন ব্যক্তি রয়েছেন। এদের মধ্যে করোনার চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত ১০০ শয্যার নরসিংদী জেলা হাসপাতাল এবং ১৯৩ জন হোম আইসোলেশনে আছেন।

জেলায় করোনায় ৩৯ জনের মৃত্যু
১১ জুলাই কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচে) চিকিৎসাধীন অবস্থায় রায়পুরার আদিয়াবাদ এলাকার আবদুল বাসেদ (৬৫) নামের একজন মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে জেলায় ৩৯ জন করোনায় সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন। তাঁদের মধ্যে সদর উপজেলার ২৩ জন, বেলাব উপজেলার ৬ জন, রায়পুরা উপজেলায় ৫ জন, মনোহরদী উপজেলা ও পলাশ উপজেলায় ২ জন করে এবং শিবপুর উপজেলায় একজন রয়েছেন। অন্যদিকে, উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও অন্তত ৫০ জন। তবে ১১ জুলাইয়ের পর গত ১৫ দিনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বা উপসর্গ নিয়ে এ জেলায় কোন মৃত্যুর ঘটনা নেই।

নরসিংদীর সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইব্রাহিম জানান, আক্রান্ত হওয়ার পর এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৪৬৬ জন। তাঁদের মধ্যে সদর উপজেলার ৮৯৬ জন, শিবপুর উপজেলার ১৪৮ জন, পলাশ উপজেলার ১৩০ জন, মনোহরদী উপজেলার ৭৪ জন, বেলাব উপজেলার ৯৬ জন ও রায়পুরা উপজেলার ১২২ জন সুস্থ হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0