বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

১৫ মার্চ নরসিংদী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সফর আলী ভূঁইয়া (৭৮) করোনা সংক্রমণে মারা যান। তাঁর মৃত্যুর পর চেয়ারম্যান পদটি শূন্য হয়। এরপর থেকে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কফিল উদ্দিন ভূঁইয়া। ২ সেপ্টেম্বর সদর উপজেলা পরিষদের এই উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

দলীয় সূত্র জানায়, সদর উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে ২২ জন মনোনয়ন ফরম কেনেন। তাঁদের মধ্যে ১৮ জন মনোনয়নপত্র জমা দেন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন সদর থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া, শহর আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক মো. আসাদুজ্জামান, জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফাতেমা সরকার, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইসহাক খলিল ও প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান সফর আলী ভূঁইয়ার ছেলে মনিরুজ্জামান।

দলীয় নেতা-কর্মীরা জানান, ২০১৯ সালের ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রথমে ঘোষণা করা হয়েছিল আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়ার নাম। পরবর্তী সময়ে তাঁর নাম পরিবর্তন করে নরসিংদী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সফর আলী ভূঁইয়াকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। কেন্দ্রের ওই নির্দেশ মান্য করে মনোনয়ন মেনে নিয়ে সফর আলী ভূঁইয়ার পক্ষে কাজ করেছিলেন আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া। ১৫ মার্চ চেয়ারম্যান মো. সফর আলী ভূঁইয়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলে পদটি শূন্য হয়। এবার আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়াকে সদর উপজেলার এই উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। তিনি সদর উপজেলার চিনিশপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, তফসিল অনুযায়ী ৭ অক্টোবর নির্বাচনের দিন ধার্য করা হয়েছে। ১৩ সেপ্টেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের তারিখ ১৪ সেপ্টেম্বর, আপিল করার শেষ তারিখ ১৭ সেপ্টেম্বর, আপিল নিষ্পত্তির তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৯ সেপ্টেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে। ২০ সেপ্টেম্বর প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হবে। নরসিংদী সদর উপজেলা ১৪টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। সদর উপজেলায় মোট ভোটার ৪ লাখ ৫৮ হাজার ৩৭৩ জন।

আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি দলীয় মনোনয়ন পেয়েছি বলে শুনেছি, তবে এখনো চিঠি হাতে পাইনি। আমাকে মূল্যায়ন করার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই। আশা করছি, দলীয় সব নেতা-কর্মীকে সঙ্গে নিয়ে উপনির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সদর উপজেলার মানুষের জন্য কাজ করতে পারব।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন