বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রবীর বিশ্বাসের অভিযোগ, একই ওয়ার্ডের আরেক সদস্য প্রার্থী বিকাশ হালদারের লোকজন তাঁর বাড়িতে হামলা করেছেন। এ ঘটনায় শিশুসহ ওই প্রার্থীর চার স্বজন আহত হয়েছেন। প্রবীর ও বিকাশ দুজনই নির্বাচনে হেরে গেছেন বলে জানা গেছে।

প্রবীর বিশ্বাসের স্ত্রী পূজা বিশ্বাস বলেন, ‘নির্বাচনে আমার স্বামী মাত্র আট ভোটে হেরে যান। রাতে ফল ঘোষণার পর ঘরে বসে আমরা কথা বলছিলাম। এ সময় বিকাশ হালদারের নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে আমাদের ঘরের দরজা-জানালা ভেঙে ফেলা হয়। এ সময় আমাদের টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট করা হয়েছে।’

তবে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বাড়িতে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগ অস্বীকার করে বিকাশ হালদার বলেন, তিনি বা তাঁর কোনো লোকজন এ হামলায় জড়িত নন।

জানতে চাইলে নাজিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশ্রাফুজ্জামান বলেন, হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। এ ঘটনায় অভিযোগ পেলে মামলা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন