বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিএনপি নেতারা বলেন, ঘরোয়া পরিবেশে সংক্ষিপ্ত কর্মসূচি পালন করে বের হলে পথে আওয়ামী লীগ কর্মীদের হামলার মুখে পড়েন নেতা-কর্মীরা। শহরের আলাইপুরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সদর উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক আনাম আহম্মেদকে ও তেবাড়িয়া এলাকায় একই সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক শরিফুল ইসলামকে কুপিয়ে জখম করা হয়। তাঁদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আমিনুল হক, সদস্যসচিব রহিম নেওয়াজ, সিংড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মজিবর রহমান, যুবদল নেতা সাইফুল ইসলাম, আসাদুজ্জামান, আনিসুর রহমান, ছাত্রদল নেতা মারুফ ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

default-image

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল অভিযোগ করেন, সমাবেশ শুরুর আগে পুলিশ তাঁদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে বাধা দিয়েছে। সমাবেশ শেষে বাসায় ফেরার পথে আওয়ামী লীগ কর্মীরা বিএনপি নেতা-কর্মীদের কুপিয়ে জখম করেছেন। তিনি সরকারের উদ্দেশে বলেন, এভাবে আর আটকে রাখা যাবে না। এরপর বিএনপি নেতারা আওয়ামী লীগ ও পুলিশের বাধা মানবেন না।

হামলা ও কর্মসূচিতে বাধা দেওয়ার বিষয়ে জেলা বিএনপির সদস্যসচিব রহিম নেওয়াজ প্রথম আলোকে বলেন, ‘পুলিশ ও আওয়ামী লীগ চাচ্ছিল না যে আমাদের কর্মসূচি পালিত হোক। তাই সকাল থেকে তারা আমাদের আতঙ্কের মধ্যে রেখেছিল। তবুও আমরা সমবেত হয়েছিলাম। কিন্তু তারা আমাদের অফিস থেকে বের হতে দেয়নি, বরং ফেরার সময় আমাদের দুই নেতাকে কুপিয়ে আহত করেছে। আমরা এর বিচার চাই।’

অভিযোগের বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিএনপির অভিযোগ মিথ্যা। আমার দলের নেতারা কাউকে মারেননি। এটা তাঁদের কোন্দলের কারণে হতে পারে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন