default-image

নাটোর সদর উপজেলার চর তেবাড়িয়া গ্রামে গলায় খেলনা বাঁশি আটকে আজ সোমবার আরিফুল ইসলাম (১০) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সে ওই গ্রামের খোদাবক্স প্রামাণিকের ছেলে।

শিশুর পরিবারের সদস্যদের দাবি, গলায় খেলনা বাঁশি আটকে থাকা অবস্থায় সকালে নাটোর সদর হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের জন্য নেওয়া হয়। হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। স্বজনদের অভিযোগ, চিকিৎসকদের অবহেলায় আরিফুলের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় হাসপাতালে স্বজনেরা বিক্ষোভ করেছেন।

বিজ্ঞাপন

তবে চিকিৎসকদের দাবি, অস্ত্রোপচারটি জটিল ছিল। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।

নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতাল ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আরিফুলকে সকালে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়। শ্বাসকষ্ট থাকায় চিকিৎসক অস্ত্রোপচার করে গলা থেকে বাঁশিটি বের করার চেষ্টা করছিলেন। এ সময় রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। শিশুটিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকেরা। তবে অ্যাম্বুলেন্সে তোলার আগেই শিশুটির মৃত্যু হয়। শিশুর বাবা খোদাবক্স প্রামাণিক, মা আমেনা বেগমসহ স্বজনেরা বিক্ষোভ করলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মুনজুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। তবুও রোগীর লোকজনের অনুরোধে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাঁশিটি বের করার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু শিশুটিকে বাঁচানো যায়নি। চিকিৎসায় কোনো অবহেলা ছিল না।’

সদর হাসপাতালের সহকারী পরিচালক আনছারুল হক বলেন, যেহেতু স্বজনেরা অভিযোগ করেছেন, তাই ঘটনাটি তাঁরা তদন্ত করে দেখবেন। তদন্তে কোনো গাফিলতির প্রমাণ পেলে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এ ব্যাপারে তাঁদের কাছে কোনো লিখিত অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য পড়ুন 0