বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গাইবান্ধা থেকে আসা মাছ বিক্রেতা মহির ব্যাপারী বাগাড় মাছটির দাম হাঁকেন ৪৮ হাজার টাকা। আর ৩টি বোয়ালের দাম হাঁকেন ৫২ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে চারটি মাছের দাম লাখ টাকা। তবে দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পরও ক্রেতাদের সাড়া পাননি তিনি। শেষ পর্যন্ত অর্ধেক দামে মাছগুলো বিক্রি করে বাড়ি ফিরেছেন তিনি।

মহির ব্যাপারী জানান, গাইবান্ধায় যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়েছিল মাছগুলো। সরাসরি জেলেদের কাছ থেকে মাছগুলো কিনে রাজশাহীতে নিয়ে যাচ্ছিলেন তাঁরা। কিন্তু বেহাল রাস্তার কারণে বগুড়া থেকে নাটোর আসতেই রাত হয়ে যায় তাঁদের। তাই মাঝপথে থেমে নাটোরের বাজারে মাছগুলো বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা।

তিনি জানান, চাল ব্যবসায়ীদের কাছে মাছগুলো বিক্রি করে ভালো দাম পাওয়ার আশা ছিল তাঁদের। কিন্তু লাখ টাকার মাছ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন। এতে তাঁদের কিছুটা লোকসান হয়, তবে সব মাছ বিক্রি করতে পেরে দুশ্চিন্তামুক্ত হয়েছেন।

এদিকে বোয়াল মাছের ক্রেতা মোক্তার আলী জানান, বাজারে হঠাৎ মানুষের ভিড় দেখে তিনিও মাছ দেখতে আসেন। বড় মাছের স্বাদ নিতে শখ করেই তিনি একটি বোয়াল মাছের কিছু অংশ কিনেছেন। দামেও অনেক সস্তা পেয়েছেন বলে জানান তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন