মামলার নথি সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে আম্বিয়াকে বিয়ে করেন ওমর ফারুক। তিনি ইটভাটা ও গৃহস্থালির কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক কলহ চলছিল। ২০২০ সালের ২ জুন রাত ৯টার দিকে রাতে খাওয়া শেষে ওমর ফারুক বাড়ির বাইরে যান। রাত দুইটার দিকে আম্বিয়ার ডাকাডাকিতে শ্বশুরসহ বাড়ির লোকজন ঘরের বাইরে এসে ওমর ফারুককে সাদা কাপড়ে মোড়ানো অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। এ সময় তাঁর চোখ, গলা ও পিঠে আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাঁর লাশ উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

এ ঘটনায় নিহত ওমর ফারুকের বাবা আবদুল্লাহ মিয়া বাদী হয়ে আম্বিয়াকে আসামি করে নাটোর সদর থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্ত শেষে ওমর ফারুকের স্ত্রী আম্বিয়ার নামে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন তদন্ত কর্মকর্তা। মামলার অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ হওয়ায় আদালত এই রায় দিয়েছেন।