ভোর চারটার দিকে তাঁর মৃত্যুর খবর শোনার পরপরই বড় ভাই মো. বাবলু হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হন। হাসপাতালে নেওয়ার আগেই নিজ বাড়িতে তাঁর মৃত্যু হয়। জুমার নামাজের পর শহরের ভবানীগঞ্জের কবরস্থানে দুই ভাইয়ের দাফন অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে রামেক হাসপাতালের আইসিইউতে থাকা ছোট ভাই জাহাঙ্গীর আলমেরও মৃত্যু হয়।

মো. বাবলু, শরিফুল ইসলাম ও জাহাঙ্গীর আলম নাটোর শহরের ভবানীগঞ্জ মহল্লার মৃত আবদুর রশিদের ছেলে। তাঁদের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

সাহারা চায়নিজ রেস্টুরেন্টের মালিক গোলাম সারোয়ার জানান, পচুর হোটেলের সুনাম দেশজুড়ে। নাটোরে এসে দেশীয় খাবার খাওয়ার প্রয়োজন পড়লে অধিকাংশ মানুষ তাঁর হোটেলে খাবার খান। অমায়িক নির্লোভ এই ব্যবসায়ীর মৃত্যুতে সবাই ব্যথিত।

শহরের সার ও কীটনাশক ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম জানান, শহরের চকরামপুর এলাকায় গীতি সিনেমা হলের পাশে প্রায় চার দশক আগে শরিফুল ইসলাম পচুর হোটেল নামে ক্ষুদ্র পরিসরে খাবার হোটেল চালু করেন। তাঁর সততা, দক্ষতা ও ভালো রান্নার গুণে পচুর হোটেলের সুনাম দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে।

শরিফুল ইসলামের ছেলে ও পচুর হোটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. লিটন জানান, তাঁর বাবা পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়মিত খোঁজখবর নিতেন। যেকোনো প্রয়োজনে সহযোগিতার হাত বাড়াতেন। এ কারণে তাঁর মৃত্যুর খবর শুনে মেজ ভাই সহ্য করতে পারেননি। হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত তিনি তাৎক্ষণিক মারা যান। তিনি বলেন, ‘এক এক করে এক দিনে আমরা আমাদের তিন আপনজনকে হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছি। তবে আমি আমার বাবার নিজ হাতে গড়ে তোলা স্বনামধন্য পচুর হোটেলটি চালু রাখব।’