নাতির লাশ দেখে দাদার মৃত্যু

বিজ্ঞাপন
default-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় নাতির লাশ দেখে হৃদ্‌যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে বৃদ্ধ দাদার মৃত্যু হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে উপজেলার ভলাকুট ইউনিয়নের খাগালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া দুজন হলেন ইউনিয়নের খাগালিয়া গ্রামের বাসিন্দা ও ভলাকুট ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কফিল উদ্দিন (৭৫) ও তাঁর নাতি মো. বায়েজিদ (৯)।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার বিকেলে শিশু বায়েজিদ নিখোঁজ হয়। প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনের বাড়িসহ সম্ভাব্য সব স্থানে খোঁজ নিয়েও বায়েজিদের সন্ধান পাওয়া যায়নি। আজ দুপুরে খাগালিয়া গ্রামের বউবাজার এলাকার বেমালিয়া নদীতে বায়েজিদের লাশ ভাসতে দেখেন স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে বৃদ্ধ দাদা কফিল উদ্দিন নিজেই নাতির লাশ উদ্ধার করতে গিয়ে ঘটনাস্থলেই অচেতন হয়ে পড়েন। সেখানেই তিনি মারা যান।

স্থানীয় লোকজন জানান, নাতি বায়েজিদকে খুব আদর করতেন তাঁর দাদা কফিল উদ্দিন। নাতির মৃত্যুর শোক সইতে পারেননি। এ জন্য নাতির লাশ দেখার সঙ্গে সঙ্গেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন বৃদ্ধ কফিল উদ্দিন।

ভলাকুট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রুবেল মিয়া বলেন, নিখোঁজের এক দিন পর নাতির লাশ পানি থেকে উদ্ধার করতে গিয়ে অচেতন হয়ে পড়েন কফিল উদ্দিন। পরে সেখানেই তিনি মারা যান। তিনি এলাকার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ছিলেন। দাদা-নাতির মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

নাসিরনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন বলেন, ‘স্থানীয় লোকজনসহ বিভিন্ন মাধ্যমে বিষয়টি আমরা শুনেছি। খুবই মর্মান্তিক। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো আপত্তি না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে পরিবারের কাছে তাঁদের লাশ হস্তান্তর করা হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন