পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানান, গত রোববার সকালে বড় ভাই তানভীর মাসুদ ও বন্ধু ইশতিয়াক রহমানের সঙ্গে নাপিত্তাছড়া ঝরনায় বেড়াতে আসেন তৌফিক আহমদ। ঝরনায় পাহাড়ি ঢলের তোড়ে পানিতে তলিয়ে গিয়ে ভাই ও বন্ধুর সঙ্গে নিখোঁজ হন এই পর্যটক। নিখোঁজের পর রোববার সন্ধ্যায় ঝরনা এলাকার পাহাড়ি ঝিরি থেকে প্রথমে ইশতিয়াক রহমানের (২০) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর সোমবার বিকেলে ঝরনা থেকে সাড়ে তিন কিলোমিটার পশ্চিমে মাছিমেরতালুক গ্রামের নাপিত্তাছড়া থেকে উদ্ধার করা হয় তৌফিকের বড় ভাই তানভীর মাসুদের লাশ। আজ (২১ জুন) সকালে সর্বশেষ উদ্ধার করা হয় তৌফিকের লাশ।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. নুরুদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, নাপিত্তাছড়া ঝরনায় নিখোঁজ তিন পর্যটকের মধ্যে দুজনের লাশ আগে উদ্ধার করা হয়েছে। আজ ঝরনা থেকে সাড়ে চার কিলোমিটার দূরে দুয়ারু গ্রামের নাপিত্তাছড়া থেকে তৌফিক নামের আরেক পর্যটকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কবির হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, আজ সকালে দুয়ারু গ্রামের নাপিত্তাছড়ায় একটি লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দেন। এরপর পুলিশ গিয়ে নিখোঁজ পর্যটক তৌফিক আহমদের লাশটি উদ্ধার করে। ধারণা করা হচ্ছে, ছড়ার তীব্র স্রোত লাশটিকে এতদূর বয়ে নিয়ে এসেছে। এর মধ্যদিয়ে নাপিত্তাছড়া ঝরনা দেখতে এসে নিখোঁজ হওয়া তিন পর্যটকের সবার লাশই উদ্ধার করা হলো।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন