বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সন্তানের শয্যার পাশে বসে কাঁদছিলেন আয়েশা ছিদ্দিকা। তিনি বলেন, গতকাল দুপুর দুইটার দিকে আহনাফের বাবা বাড়ির সামনের রাস্তায় দাঁড়িয়ে গাছ থেকে তাল পারার তদারকি করছিলেন। এ সময় আহনাফ তার বাবার সঙ্গে ঘুরতে যাবে বলে ঘরে এসে নতুন পোশাক পরে বের হয়। বাড়ি থেকে বেরিয়ে বাবাকে না পেয়ে রাস্তা ধরে হাঁটতে থাকে সে। এরপর আর আহনাফকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি গলাচিপা থানা–পুলিশকে জানানো হয়। এ ছাড়া এলাকার লোকজন শিশুটিকে খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন।

গলাচিপা থানা–পুলিশ জানায়, খবর পেয়ে পুলিশের একাধিক দল ওই এলাকায় শিশুটির সন্ধানে নামে। কয়েকজন শিশুটিকে একা হেঁটে যেতে দেখেছেন বলেও জানান। তবে বিকেল ও সারা রাত পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় খোঁজাখুঁজি করেও শিশুটির সন্ধান পাচ্ছিল না। পরে আজ ভোর ৬টার দিকে বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে একটি ডোবার পানিতে নারকেলগাছের ডাল ধরে আহনাফকে ভেসে থাকতে দেখেন স্থানীয় এক নারী। তাঁর চিৎকারে স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে এসে শিশুটিকে উদ্ধার করেন। এরপর পুলিশও ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পরে শিশুটিকে উদ্ধার করে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

শিশুটির মা আয়েশা ছিদ্দিকা বলেন, তাঁর ছেলে ভালোভাবে কথা বলতে পারে না। ১৬ ঘণ্টা সে কোথায় ছিল বা কখন, কীভাবে ডোবায় পড়ে গেল, তা ঠিক বুঝতে পারছেন না তিনি।

শিশুটি এখন ভালো আছে বলে জানিয়েছেন গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোসবাহউদ্দিন। তিনি মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা শিশুটিকে পর্যবেক্ষণে রেখেছি। প্রয়োজন হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে পটুয়াখালীতে পাঠানো হবে।’

গলাচিপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শওকত আনোয়ার বলেন, দীর্ঘক্ষণ পানিতে থাকায় শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়েছে বলে মনে হচ্ছে। হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। বিষয়টি পুলিশ তদন্ত করে দেখছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন