default-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে করোনার টিকাকেন্দ্রে গিয়ে ফটোসেশন করে আলোচনার জন্ম দিলেন সংরক্ষিত আসনের সাংসদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের এক নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম ওরফে শিউলি আজাদ। আজ রোববার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিকাকেন্দ্রে এমনটি করেন।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আরিফুল হক, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফারজানা প্রিয়াংকা, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নোমান মিয়া, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া বেগম, সরাইল সদর ইউপির চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার, সংবাদকর্মী, স্বাস্থ্যকর্মীসহ শতাধিক ব্যক্তি।

সাংসদ উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম প্রথম আলোকে বলেন, তিনি জাতীয় সংসদ ভবনে টিকা নেওয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন। এ কারণে এখানে তিনি টিকা নেননি।

সাংসদ টিকা নেওয়ার ভাব করে ছবি তোলেন। সাংসদের এমন ফটোসেশনের ঘটনায় উপস্থিত অনেকেই বিরূপ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের বেশ কয়েকজন নেতা বলেন, সাংসদের এমন আচরণ কাণ্ডজ্ঞানহীন।

বিজ্ঞাপন

আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নোমান মিয়ার সভাপতিত্বে টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম।

সরেজমিনে দেখা গেছে, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সরাইলে প্রথম টিকা নেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া বেগম, দ্বিতীয় টিকা নেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম এবং তৃতীয় টিকা নেন উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সভাপতি মাহফুজ আলী।

প্রথম দিন বিকেল চারটা পর্যন্ত মোট টিকা নিয়েছেন ৬৩ জন। এর মধ্যে ৫৫ জন পুরুষ। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানসহ মোট ৬ জন নারী টিকা নিয়েছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নোমান মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, সরাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তিনটি বুথে টিকা দেওয়া হয়। তিনটি বুথের দায়িত্বে আছেন ২৪ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। এ ছাড়া আছেন ৪৮ জন স্বেচ্ছাসেবী কর্মী। ইতিমধ্যে সবাইকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত সরাইলে ৪৬০ জন টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন