বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়ারেস আলী। প্রধান বক্তা ছিলেন শেরপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হযরত আলী। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আবদুল আউয়াল চৌধুরী, শফিকুল ইসলাম, নালিতাবাড়ী উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ইউনুস আলী, আবদুল্লাহ আবু সাঈদ, পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আনোয়ার হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম তালুকদার প্রমুখ।

সর্বশেষ ২০০৩ সালে সম্মেলনের মাধ্যমে উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়েছিল। পরে প্রায় ১৮ বছর পর আজ দুপুরে সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
default-image

বিকেলে প্রথম অধিবেশন শেষ হওয়ার পর বিএনপির একদল কর্মী অতর্কিত হামলা চালিয়ে চেয়ার ভাঙচুর ও চেয়ার–ছোড়াছুড়ি করে। এতে সম্মেলনস্থলে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। এ সময় জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতারা কমিটি ঘোষণা না দিয়েই সভাস্থল ত্যাগ করেন। এতে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশন পণ্ড হয়ে যায়। পরে জেলায় সম্মেলন সম্পন্ন হবে বলে জানা যায়।

এ ব্যাপারে উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান বলেন, ‘দীর্ঘদিন পর উৎসবমুখর পরিবেশে সম্মেলন করার জন্য আমরা প্রস্তুত ছিলাম। সম্মেলনকে বানচাল করতেই একটি পক্ষ পরিকল্পনা করে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। ঘটনাটি সত্যি দুঃখজনক।’

জানতে চাইলে উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক নুরুল আমীন বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাকে কেন্দ্র করে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশন স্থগিত করা হয়েছে। পরে জেলা কমিটির মাধ্যমে উপজেলা কমিটি সম্পন্ন হবে। কোনো পক্ষের ষড়যন্ত্রে এই ঘটনা ঘটেছে কি না, তা এখনই বলতে পারছেন না। তবে বিশৃঙ্খলাকারীরা দলের কর্মী হয়ে থাকলে তাঁদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন