default-image

শেরপুরের নালিতাবাড়ী পৌরসভার একটি গ্রামে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তরুণীকে (১৯) ধর্ষণের অভিযোগে সুজন মিয়া (২৪) নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গতকাল রোববার রাতে নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলা থেকে সুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযুক্ত সুজন নালিতাবাড়ী পৌরশহরের একটি গ্রামের বাসিন্দা।

এর আগে গত বুধবার সুজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে নালিতাবাড়ী থানায় মামলা করেন তরুণীর মা। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আওলাদ হোসেন ও নালিতাবাড়ী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আতাউর রহমান ও জগলুল পাশা গতকাল রাতে অভিযান চালিয়ে নরসিংদীর মনোহরদী এলাকার একটি ইটভাটা থেকে সুজনকে গ্রেপ্তার করেন।

নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বছির আহমেদ বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তরুণীর সঙ্গে প্রেম ও শারীরিক সম্পর্কের কথা বলেছেন সুজন। তাঁকে আজ সোমবার আদালতে নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহারে তরুণীর মা উল্লেখ করেছেন, ভুক্তভোগী তরুণী অভিযুক্ত সুজনের বোনের বান্ধবী। এ জন্য প্রায়ই বান্ধবীর বাড়িতে যাতায়াত করতেন। গত বছর সুজনের সঙ্গে তাঁর ভুক্তভোগীর পরিচয় হয়। পরে প্রেম করে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে সুজন ভুক্তভোগীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন। প্রায় চার মাস আগে ভুক্তভোগী তরুণী অসুস্থ হয়ে পড়লে বিষয়টি এলাকায় জানা জানি হয়।

এজাহারে বলা হয়েছে, ঘটনা জানাজানি হলে সুজন এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যান। অন্যদিকে, তরুণীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তিনি তাঁর মাকে ঘটনার বিস্তারিত বলেন। ওই তরুণী বর্তমানে অন্তঃসত্ত্বা। শেরপুর সদর হাসপাতালে তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হয়েছে।

ভুক্তভোগী তরুণীর মা বলেন, মেয়েটার বাবা আগেই মারা গেছেন। এখন তিনি অন্যের বাড়িতে কাজ করে সংসার চালান। ধর্ষণের ঘটনার তিনি বিচার চান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন