বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ফলাফল সূত্রে জানা গেছে, সদর ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত পুতুল রানি দাস ৪ হাজার ৮৭৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থীর ফিজ মিয়া (চশমা) পেয়েছেন ৩ হাজার ৮৫৭ ভোট।

পূর্বভাগে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আক্তার মিয়া ৪ হাজার ৩১৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ হোসেন (আনারস) পেয়েছেন ৩ হাজার ৯১৬ ভোট। ভলাকুটে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রুবেল মিয়া ৮ হাজার ৭৩০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আরাফাত আলী (আনারস) পেয়েছেন ৫ হাজার ৬৩৩ ভোট।

ফান্দাউকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ফারুকুজ্জান ফারুক পান ৬ হাজার ১০১ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী সফিকুল ইসলাম (ঘোড়া) পেয়েছেন ২ হাজার ৮০৮ ভোট। চাপরতলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মনসুর আলী ভূঁইয়া পান ২ হাজার ৯২৪ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল হামিদ (চশমা) পেয়েছেন ২ হাজার ৯০৭ ভোট।

গুনিয়াউকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জিতু মিয়া ৩ হাজার ৬৫৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাবেক সদস্য শামছুল হক ২ হাজার ৫৭৯ ভোট পান।

আওয়ামী লীগের তিন বিদ্রোহী নির্বাচিত
ফলাফল সূত্রে জানা গেছে, গোকর্ণ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সৈয়দ মো. শাহীন (ঘোড়া) ৫ হাজার ৫১১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছোয়াব মোহাম্মদ পান ৪ হাজার ৯৯৩ ভোট।

হরিপুরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া ফারুক মিয়া (আনারস) ৬ হাজার ১৮৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী জামাল মিয়া (চশমা) পান ৪ হাজার ১৬৯ ভোট। চাতলপাড়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রফিকুল ইসলাম (চশমা) ১১ হাজার ৩৮৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শেখ আবদুল আহাদ পান ৭ হাজার ৩২৯ ভোট।

চার স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী
ধরমন্ডলে স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম (আনারস) ৬ হাজার ৭৯৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাহার উদ্দিন চৌধুরী পেয়েছেন ৪ হাজার ২৮০ ভোট। বুড়িশ্বরে স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা বিএনপি সাবেক সভাপতি ইকবাল চৌধুরী ৯ হাজার ৪৬৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এ টি এম মোজাম্মেল হক সরকার পেয়েছেন ৭ হাজার ৪৬৩ ভোট। গোয়ালনগরে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান আজহারুল হক চৌধুরী (ঘোড়া) ৪ হাজার ১৫০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কিরন মিয়া পেয়েছেন ৪ হাজার ১২১ ভোট। আহজারুল হক উপজেলা বিএনপির বিলুপ্ত ১০১ সদস্যের কমিটির ৬৮ নম্বর সদস্য ছিলেন। শফিকুল ও ইকবাল বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত আছেন।

কুন্ডায় স্বতন্ত্র প্রার্থী নাছির উদ্দিন ভূঁইয়া (আনারস) ৫ হাজার ৯৪১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ওমরাও খান (চশমা) ৪ হাজার ৫১১ ভোট পান। ওমরাও বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন