default-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার ধরমণ্ডলে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হয়েছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের অভিযোগ হামলা-ভাঙচুরের সঙ্গে স্থানীয় জামায়াত ও হেফাজতে ইসলামের লোকজন জড়িত।

ধরমণ্ডল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক রুবেল হোসেন বলেন, কয়েক দিন আগে জামায়াত-শিবিরের লোকজন এলাকায়  ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিবিরোধী মিছিল বের করতে চেয়েছিলেন। এ সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা–কর্মীরা তাঁদের বাধা দেন। এ কারণে তাঁরা মিছিল করতে পারেননি। এ ঘটনার জেরে বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটার দিকে জামায়াত-শিবিরের লোকজন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেন। এ সময় তাঁরা কার্যালয়ের আসবাবের পাশাপাশি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সাংসদ বি এম ফরহাদ হোসেনের ছবি ভাঙচুর করেন।

ধরমণ্ডল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘মোদিবিরোধী কর্মকাণ্ডের নামে বিএনপি, জামায়াত ও হেফাজতের কর্মীরা এলাকায় অরাজকতা করার চেষ্টা করছিল। আমরা এতে বাধা দিয়েছিলাম। বৃহস্পতিবার তারা দলবদ্ধভাবে এসে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ভাঙচুর করে।’

বিজ্ঞাপন

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ধরমণ্ডল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাহার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘জামায়াত-শিবিরের লোকজন অতর্কিত এই হামলা চালিয়েছেন। হামলার পর আমি ক্ষতিগ্রস্ত অফিস পরিদর্শন করেছি। সাংসদকে বিষয়টি অবহিত করেছি। তাঁরা কী কারণে আমাদের কার্যালয়ে হামলা করেছেন, তা জানার চেষ্টা করছি।’ তিনি আরও বলেন, তাঁরা এলাকায় মোদিবিরোধী আন্দোলন করতে চাইলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মীরা বাধা দিয়েছিলেন। এ ঘটনার জেরে এমনটি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ টি এম আরিচুল হক জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন