default-image

টেবিলে প্যাকেটভর্তি টিস্যু ও রাবার রাখা। পাশে চার-পাঁচজন পুলিশ সদস্য টিস্যু ভাঁজ করছেন। আরও দুই-তিনজন ভাঁজ করা টিস্যুর দুই পাশে রাবার রেখে তা ভাঁজ করে স্ট্যাপলারের পিন মেরে আটকে দিচ্ছেন। এভাবে একেক করে তৈরি হচ্ছে সাশ্রয়ী মাস্ক।

পরে পুলিশ সদস্যরা নিজেরা তা ব্যবহার করছেন এবং অন্যদের মধ্যে বিতরণ করছেন। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া থানায় আজ সোমবার সকালে গিয়ে এ দৃশ্য দেখা গেছে।
বেলা সাড়ে ১০টার দিকে থানায় গেলে দেখা যায়, মাস্ক তৈরিতে ব্যস্ত উপপরিদর্শক (এসআই) সনক কান্তি দাস। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে সবাই এখন স্বাস্থ্যসচেতন। বাজারে এমনিতেই মাস্কের সংকট। অনেক দোকানে আবার বেশি দাম নেওয়া হয়। এ অবস্থায় টিস্যু ও রাবার কিনে নিজেরাই এটা তৈরি করে নিচ্ছেন। এতে খরচও অনেক কম পড়ছে। সম্প্রতি অনলাইনে একটি ভিডিও দেখে এটা তৈরির কৌশল শিখেছেন তাঁরা।

সনক আরও বলেন, আইনশৃঙ্খলাসংক্রান্ত কাজে প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকায় ছুটতে হয় তাঁদের। তাই নিজেদের সুরক্ষার জন্য তাঁরা মাস্ক তৈরি করছেন।

একটু পর দেখা যায়, এসআই আবদুর রহিম, হারুন আল রশীদ ও পরিমল চন্দ্র দাস মাস্ক পরে মামলার তদন্তে বাইরে যাচ্ছেন। তাঁরা বলেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি), পরিদর্শকসহ (তদন্ত) অন্য পুলিশ সদস্যদেরও একটি করে মাস্ক দেওয়া হয়েছে। এটি পেয়ে সবাই খুশি।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন