default-image

দেশের মফস্বল সাংবাদিকেরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম নামে একটি সংগঠনের সাংবাদিকেরা। সংগঠনটির পক্ষ থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন এবং এই আইনের মাধ্যমে যাতে সাংবাদিকদের হয়রানি করা না হয়, সে দাবি তোলা হয়।

সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আজ মঙ্গলবার অবস্থান কর্মসূচি পালন করে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম। কর্মসূচি থেকে সাংবাদিক নির্যাতন বন্ধে আইন প্রণয়নের দাবি জানান সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। এ ছাড়া সংগঠনটির পক্ষ থেকে দেশব্যাপী কলম বিরতি কর্মসূচিও পালন করেন সংগঠনের সদস্যরা। এ সময় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে নিহত সাংবাদিক মুজাক্কিরের ছবিসংবলিত ব্যানার নিয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় কর্মরত সাংবাদিকেরা তাঁদের নিরাপত্তাহীনতার কথা বলেন।  

বিজ্ঞাপন

অবস্থান কর্মসূচি থেকে মফস্বল সাংবাদিকেরা অভিযোগ করে বলেন, ঢাকার বাইরে বিভিন্ন এলাকার সাংবাদিকদের ওপর নানা রকম নির্যাতন করা হচ্ছে। সাংবাদিক গুলিবদ্ধ হয়ে মারা যাচ্ছেন, কুপিয়ে হত্যা করা হচ্ছে, প্রকাশ্যে রাস্তায় পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে ফেলা হচ্ছে, গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করা হচ্ছে। অথচ মামলা হওয়ার পরও পুলিশ আসামি খুঁজে পাচ্ছে না।

গত মাসে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ চলাকালে গুলিবদ্ধ হয়ে প্রাণ হারানো সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার ঘটনায় দায়ীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানান ঢাকার বাইরে বিভিন্ন এলাকায় কর্মরত সাংবাদিকেরা।

সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক আধুনিক বাংলার সাংবাদিক আহমেদ আবু জাফর বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকদের জন্য একটি বড় বিপদ। কারণ, প্রতিনিয়ত সাংবাদিকেরা লেখেন। সাংবাদিকদের যদি এই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় আনা হয়, তাহলে আর সাংবাদিকতা বলে কিছু থাকে না।
আবু জাফর বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অবিলম্বে সংশোধন করতে হবে এবং এই আইনের মাধ্যমে যাতে সাংবাদিকদের হয়রানি করা না হয়, সে জন্য আমরা দাবি জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে সাংবাদিকদের এ আইনের আওতার বাইরে রাখার দাবি জানাচ্ছি আমরা।’

এ সময় সাংবাদিকদের সুরক্ষায় আইন প্রণয়নের দাবিসহ ১৪ দফা দাবি তুলে ধরেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের নেতারা।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন