বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রার্থীরা রিকশা ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় মাইক লাগিয়ে প্রচারণামূলক গান ও স্লোগান প্রচার করছেন। এসব ভ্রাম্যমাণ মাইকের লাগাতার শব্দে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে চলমান এসএসসি পরীক্ষার্থী ও আসন্ন এইচএসসির পরীক্ষার্থীরা। নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি অনুযায়ী, বেলা দুইটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত মাইকিং করে প্রচারণা চালানোর নিয়ম থাকলেও, সেটি মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ জানিয়েছেন অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীরা।

দক্ষিণ পাড়া মহল্লার এসএসসি পরীক্ষার্থীর অভিভাবক আবুল কালাম বলেন, রাত সাড়ে আটটা-নয়টা পর্যন্ত মাইকে প্রচারণা চলতে থাকে। বিকট শব্দের কারণে ছেলেমেয়েরা পড়াশোনায় মন বসাতে পারছে না।

দক্ষিণ কর্মকারপাড়ার রতন কুমারসহ চার-পাঁচজন অভিভাবক বলেন, এভাবে দিনরাত মাইক বাজানোর কারণে পরীক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। পরীক্ষার্থীদের সমস্যার কথা ভেবে প্রার্থীদের মাইকিং বন্ধ অথবা সীমিত করার জন্য দাবি জানান তাঁরা।

default-image

এ ব্যাপারে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী কে এম আবদুল্লাহ দাবি করেন, পরীক্ষার্থীদের কথা বিবেচনায় এনে মাইকের মাধ্যমে যতটুকু প্রচার না করলেই নয়, ঠিক ততটুকুই করা হচ্ছে। সন্ধ্যার পর থেকে সীমিত পরিসরেই মাইকিং করা হচ্ছে।

এদিকে কাউন্সিলর প্রার্থী নান্না মিয়া, শহীদুল ইসলামসহ চার থেকে পাঁচজন প্রার্থীর সঙ্গে কথা হলে তাঁরা বলেন, সন্ধ্যার পর মাইকিং বন্ধের ব্যাপারে সব প্রার্থী যদি এগিয়ে আসেন, তাহলে তাঁরাও সেটি বাস্তবায়ন করবেন।

বেড়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার বলেন, প্রার্থীরা যেন আচরণবিধি মেনে মাইকিং করেন, সে ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে। প্রার্থীদের প্রতি আহ্বান থাকবে, তাঁরা যেন পরীক্ষার্থীদের কথা বিবেচনায় রেখে মাইকিংয়ের মাধ্যমে প্রচারণা চালান। এ ছাড়া আগামীকাল বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও প্রার্থীদের নিয়ে বেড়ায় গুরুত্বপূর্ণ একটি বৈঠক হবে। সেখানে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন