default-image

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় ধাপে ১৬ জানুয়ারি। অনেক পৌরসভায় ইভিএমে ভোট গ্রহণ হলেও এখানে ভোট গ্রহণ হবে ব্যালটে। নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিনজন। বিএনপি থেকে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন এ পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও নবীগঞ্জ পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি ছাবির আহমদ চৌধুরী। প্রথম আলোর মুখোমুখি হয়ে নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন তিনি।

নির্বাচনী পরিবেশ কেমন, সুষ্ঠু ভোট নিয়ে কোনো শঙ্কা আছে কি?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: নির্বাচনী পরিবেশ প্রথম দিকে ভালোই ছিল। কিন্তু এক সপ্তাহ ধরে নৌকার প্রার্থী গোলাম রসূল চৌধুরী উপঢৌকন বিতরণ করে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। এ ছাড়া ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের না যাওয়ার জন্য ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। তিনি একজন মন্ত্রীর মেয়ের জামাই হওয়ায় বিভিন্নভাবে প্রভাব বিস্তার করছেন।

এখন পর্যন্ত প্রচারণায় কোনো বাধার সম্মুখীন হয়েছেন কি?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: আমার কর্মীদের ওপর মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে আমার একাধিক কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় আমি ও পৌরবাসী উদ্বিগ্ন। এ রকম অবস্থা চলতে থাকলে সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কা থেকেই যায়।

মেয়র পদে দায়িত্ব পালন করেছেন একবার। এর আগে কাউন্সিলর ছিলেন দুবার। আগের নির্বাচন ও এবারের নির্বাচনের মধ্যে কোনো পার্থক্য দেখছেন কি?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: হ্যাঁ। বিগত নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণায় সমঅধিকার ছিল ও পরিবেশ ছিল সুষ্ঠু। কিন্তু এবারের নির্বাচনে দলীয় প্রভাব লক্ষণীয়। ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন সরকারদলীয় প্রার্থীর লোকজনেরা।

মানুষের কাছ থেকে কেমন সাড়া পাচ্ছেন? জয়লাভের প্রত্যাশা কতটুকু?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: আল্লাহর অশেষ মেহেরবানিতে জনসাধারণের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। জনসাধারণ নির্বিঘ্নে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারলে জয় আমার শতভাগ ইনশা আল্লাহ।

বিজ্ঞাপন

এবারের নির্বাচনে কোনো প্রার্থীকে নিজের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করছেন?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুল আলম সুমন এবং আওয়ামী লীগ প্রার্থী গোলাম রসূল চৌধুরী উভয়কেই নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করি।

নবীগঞ্জ পৌর এলাকার সবচেয়ে বড় সমস্যা কোনটি? আপনি আবারও নির্বাচিত হলে কোন কাজটি অগ্রাধিকার দেবেন?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: নবীগঞ্জ পৌর এলাকার সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো যানজট। আল্লাহর রহমতে আবারও নির্বাচিত হলে যানজট নিরসনকেই অগ্রাধিকার দেব।

এবারের নির্বাচনে কিছু পৌরসভায় ইভিএমে ভোট গ্রহণ হয়েছে। আপনার পৌরসভায় ভোট গ্রহণ হবে ব্যালটে। এ বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: নির্বাচন কোন পদ্ধতিতে হবে সেটা আমার কাছে বড় বিষয় নয়। আমি মনে করি, ভোট গ্রহণে স্বচ্ছতা, জবাবদিহি এবং নিরপেক্ষতাই মূল বিষয়। তা ইভিএম বা ব্যালটে যেভাবেই হোক না কেন।

মেয়র হিসেবে বিগত সময়ে যা করেছেন তাতে নিজেকে সফল বলে মনে করেন কি?

ছাবির আহমদ চৌধুরী: বিগত পাঁচ বছরে নবীগঞ্জ পৌরসভার জনগুরুত্বপূর্ণ অনেক কাজ সম্পন্ন করেছি, যা বিগত ১৭ বছরেও কেউ বাস্তবায়ন করতে পারেননি। যেমন পৌর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা, কবরস্থান নির্মাণ, নান্দনিক শহীদ মিনার নির্মাণ। একটি পরিচ্ছন্ন নগর তৈরি করেছি। কাজেই নিজেকে সফল মনে করি।

মন্তব্য করুন