default-image

শেরপুরে এক কিশোরকে নির্যাতনের ঘটনায় করা মামলায় জামিনে থাকা চার কিশোরের জামিন বাতিল করেছেন আদালত। আজ বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে উভয় পক্ষের শুনানি শেষে শিশু আদালতের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান জামিন বাতিল করে ওই কিশোরদের গাজীপুর কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এই চার কিশোর স্কুলছাত্র। রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) মো. গোলাম কিবরিয়া জামিন বাতিলের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন

গত ৩ আগস্ট শেরপুর শহরের গোপালবাড়ী এলাকার পুরোনো পৌর ভবন প্রাঙ্গণে নির্যাতনের ওই ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার কিশোরের নাম আশিকুর রহমান (১৬)। সে সদর উপজেলার মধ্যবয়ড়া কানাশাখোলা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে। সে শহরের একটি হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, পূর্বপরিচয়ের সূত্রে গত ৩ আগস্ট দুপুরে চার আসামির একজন মুঠোফোনে কথা আছে বলে আশিকুরকে শহরের গোপালবাড়ী এলাকার পুরোনো পৌর ভবন প্রাঙ্গণে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে যাওয়ার পরপরই একজনের (আরেক আসামি) বান্ধবীকে কেন আশিকুর খুদে বার্তা দিয়েছে—এ কথা বলেই তারা আশিকুরকে ব্যাপক মারধর করে। এমনকি প্যান্টের বেল্ট দিয়েও আশিকুরকে পেটানো হয়। আসামিদের একজন নির্যাতনের দৃশ্য ভিডিও করে। আশিকুরের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে নির্যাতনের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এ ঘটনায় আশিকুরের চাচাতো ভাই নাছিমুল হক বাদী হয়ে পাঁচ কিশোরের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও ২-৩ জনকে আসামি করে গত ৪ আগস্ট সদর থানায় মামলা করেন। মামলার পরপরই পুলিশ চারজনকে গ্রেপ্তার করে। তারা আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পায়। কিন্তু আজ মামলার ধার্য তারিখে রাষ্ট্রপক্ষের বক্তব্য, নির্যাতনের ভিডিও চিত্র ও মামলার দালিলিক কাগজপত্র বিশ্লেষণ করে আদালত ওই চার কিশোরের জামিন বাতিল করেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন