বিজ্ঞাপন

কিছুদিন আগেও হাজারো পর্যটকের আগমনে মুখর থাকত এলাকা। তাদের হই হুল্লোড় বনের শান্ত নিবিড় পরিবেশ হারিয়ে ফেলেছিল লাউয়াছড়া। মানুষজনের পদভারে এ বনের বন্যপ্রাণীর দেখাও অনেকটা মেলত না। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সরকারি নির্দেশে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে পর্যটক প্রবেশ বন্ধ হয়ে যায়। পর্যটকশূন্য লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান এখন তার আগের পরিবেশ ফিরে গেছে।

বৃহস্পতিবার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে গিয়ে দেখা যায়, মনের আনন্দে বন্যপ্রাণীগুলো ঘুরে বেড়াচ্ছে। বানরগুলো এক গাছ থেকে আরও এক গাছে লাফিয়ে বেড়ায়। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শোনা যায় মহাবিপন্ন উল্লুকের আওয়াজ। সতেজ সবুজ পাতার ভেতরে চশমাপরা বানরকে খেলা করতে দেখা যায়। বনের ভেতরে ঘুরে বেড়াচ্ছিল বন মোরগ। বিভিন্ন প্রজাতির পাখির কিচিরমিচির শব্দ। বনের মধ্যে মায়া হরিণকেও ঘুরে বেড়াতে দেখা গেল।

default-image

লাউয়াছড়া খাসিয়া পুঞ্জির ছাত্র নেতা সাজু মারছিয়াং বলেন, ১৯৯৬ সালের পর এই প্রথম এ উদ্যান তার নিজস্ব চেহারা ফিরে পেয়েছে। নেই মানুষজনের চেঁচামেচি-চিৎকার। আর দুই দিনের বৃষ্টিতে বন তার হারিয়ে যাওয়া সতেজতা ফিরে পেয়েছে। এতে বন্যপ্রাণীগুলোও নিঃশঙ্কচিত্তে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের মৌলভীবাজারের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, দুই দিনের বৃষ্টিতে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান সতেজ হয়ে উঠেছে। বনের প্রাণীগুলো এখন মহাআনন্দে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন