default-image

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি মোকাবিলায় এবার নেত্রকোনা জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম আজ সোমবার বেলা একটায় এই ঘোষণা দেন।

লকডাউন ঘোষণার ফলে জেলায় কেউ প্রবেশ করতে পারবেন না বা জেলা থেকে বের হতে পারবেন না। জেলার অভ্যন্তরে আন্তঃউপজেলায় যাতায়াতের ক্ষেত্রেও একই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে।

গত শুক্রবার দুজনসহ গতকাল রোববার বিকেলে নেত্রকোনায় মোট চারজন করোনাভাইরাস আক্রান্ত শনাক্ত হন। এর মধ্যে দুজন নারী রয়েছেন। এ নিয়ে জেলা প্রশাসক আজ দুপুরে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংক্রান্ত জেলা কমিটির জরুরি বৈঠক ডাকেন। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জেলাকে লকডাউন ঘোষণা দেওয়া হয়।

জেলা প্রশাসক প্রথম আলোকে বলেন, নেত্রকোনা জেলাকে আজ বেলা একটা থেকে অবরুদ্ধ ঘোষণা করা হলো। এর মাধ্যমে জেলায় প্রবেশ ও প্রস্থান নিষিদ্ধ করা হলো। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে।

জেলা প্রশাসক সাক্ষরিত লকডাউন–সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নেত্রকোনা করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সংক্রান্ত জেলা কমিটির এক জরুরি সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি মোকাবিলায় 'সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন–২০১৮ অনুযায়ী জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তার লক্ষ্যে জেলাকে অবরুদ্ধ (লকডাউন) ঘোষণা করা হলো।


বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জাতীয় ও আঞ্চলিক সড়ক অথবা মহাসড়ক এবং নৌপথে অন্য কোনো জেলা থেকে নেত্রকোনা জেলায় কেউ প্রবেশ কিংবা এই জেলা থেকে কেউ প্রস্থান করতে পারবেন না। জেলার অভ্যন্তরে আন্তঃউপজেলা যাতায়াতের ক্ষেত্রেও একই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে। আদেশ অমান্যকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, সব ধরনের গণপরিবহন, জনসমাগম বন্ধ থাকবে। তবে জরুরি পরিষেবা, চিকিৎসাসেবা, কৃষিপণ্য, কৃষিকাজে নিয়োজিত সেবা, জ্বালানি, খাদ্যদ্রব্য সরবরাহ ও সংগ্রহ ইত্যাদি এর আওতাবহির্ভূত থাকবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0