বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহারে বলা হয়, গত শনিবার খুলশী লায়ন্স চক্ষু হাসপাতালে অভিযুক্ত চিকিৎসকের পরামর্শে অস্ত্রোপচারের জন্য ভর্তি হন হালিমা। তাঁর নেত্রনালির অস্ত্রোপচারের কথা ছিল। তবে অস্ত্রোপচার কক্ষে নিয়ে চোখে লেন্স বসানো হয়। লেন্স লাগানোর কারণে হালিমার চোখ থেকে পানি পড়তে থাকে এবং ব্যথা শুরু হয়। তখন চিকিৎসক মিনহাজুল ইসলামকে ডাকলেও আসেননি। পরে হাসপাতাল থেকে চলে যান তিনি। ওই হাসপাতালে হালিমা নামের ৩০ বছর বয়সী আরেক রোগী ভর্তি ছিলেন। মূলত তাঁর চোখে লেন্স লাগানোর কথা ছিল।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে একাধিকবার চেষ্টা করেও অভিযুক্ত চিকিৎসকের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সন্তোষ কুমার চাকমা প্রথম আলোকে বলেন, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

এদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লায়ন্স চট্টগ্রাম জেলার কেবিনেট সেক্রেটারি এস এম আশরাফুল আলম প্রথম আলোকে সোমবার সন্ধ্যায় বলেন, মঙ্গলবার কেবিনেট সদস্যরা চিকিৎসকদের সঙ্গে বৈঠক করে ব্যবস্থা নেবেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রোগীর সম্পূর্ণ দায়দায়িত্ব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বহন করবে। রোগীকে পূর্ণ সহযোগিতা করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন