বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার সকালে স্ত্রীর কাছে নেশার টাকা চান আলম শেখ। না দেওয়ায় স্ত্রী সীমা বেগমকে পিটিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেন তিনি। এরপর তিন সন্তানকে জোর করে কীটনাশক খাইয়ে দেন। ছেলেদের চিৎকারে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে তাদের উদ্ধার করে মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে তাদের অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার হোসেন শেখের মৃত্যু হয়।

সীমা বেগম (৩০) বলেন, তাঁর স্বামী আলম শেখ মাদকাসক্ত। তাঁর কাছে নেশার টাকা চাইলে না দেওয়ায় তাঁকে প্রচণ্ড মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে তিন ছেলেকে কিটনাশক (বিষ) পানিতে মিশিয়ে জোর করে পান করিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন। ছোট ছেলে মারা গেছে। বাকি দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

মুকসুদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর মিয়া জানান, এ ঘটনায় শিশুদের চাচা (আলমের খালাতো ভাই) মিলু মোল্লা বাদী হয়ে মুকসুদপুর থানায় একটি মামলা করেন। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে মাদকাসক্ত বাবা আলম শেখকে গ্রেপ্তার করে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন