নির্যাতনের শিকার ছাত্রলীগ নেতার নাম রিয়াদ উদ্দিন ওরফে শাকিল (২২)। তিনি হাতিয়া দ্বীপ সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সহসভাপতি।

গতকাল রোববার রাতে স্থানীয় ওছখালি বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ওই নির্যাতন চালানো হয়। পরে তাঁকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। এ ঘটনায় অভিযুক্ত একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁর নাম নুরুল আমিন (৫০)।

খবর পেয়ে রাত আড়াইটার দিকে হাতিয়া থানার পুলিশ ওই ছাত্রলীগ নেতাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে।

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ছাত্রলীগ নেতা রিয়াদ উদ্দীনের সঙ্গে হাতিয়া পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের চর কৈলাস এলাকার একটি মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এ নিয়ে ওই মেয়ের ভাইসহ তাঁর লোকজন বিভিন্ন সময় রিয়াদকে নানা হুমকিধমকি দেন। গতকাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে রিয়াদ উপজেলা সদরের ওছখালী বাজার থেকে পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাড়িতে ফিরছিলেন। এ সময় কয়েকজন রিয়াদের পথরোধ করে চোখ বেঁধে তাঁকে ওই মেয়ের বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে রিয়াদকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বেদম মারধর করা হয়। খবর পেয়ে রাত আড়াইটার দিকে হাতিয়া থানার পুলিশ তাঁকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে।

হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, রাতে নির্যাতনের ঘটনার খবর পেয়ে থানা পুলিশের একটি দল গিয়ে ওই ছাত্রলীগ নেতাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নির্যাতনের শিকার ছাত্রলীগ নেতা রিয়াদ উদ্দিন বাদী হয়ে ছয়জনকে অসামি করে মামলা করেছেন। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ওসি আরও বলেন জানান, গ্রেপ্তার নুরুল আমিন নির্যাতনের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। তা ছাড়া এ ঘটনায় জড়িত অন্য আসামিদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন