default-image

নোয়াখালীতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ২৭ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের একজন উপসহকারী চিকিৎসা কর্মকর্তা (স্যাকমো) ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) গাড়িচালক রয়েছেন। রোববার সকালে জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় কোভিড-১৯–এ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৫১৪।

শনিবার বিকেলে এবং রাতে জেলার দুটি করোনা পরীক্ষাকেন্দ্র আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ ও নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবের প্রতিবেদনে নতুন ২৭ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার বিষয়টি সিভিল সার্জনের কার্যালয়কে জানানো হয়।

জেলা সিভিল সার্জন মাসুম ইফতেখার প্রথম আলোকে বলেন, ২৪ ঘণ্টায় ৮৭টি নমুনা পরীক্ষা করে ২৭ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পজিটিভ পাওয়া গেছে। একই সময় জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ১৮ জন রোগী করোনাভাইরাসমুক্ত হয়েছেন বলে জানান সিভিল সার্জন।

সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় সেনবাগে ৯ জন শরীরের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের একজন উপসহকারী চিকিৎসা কর্মকর্তা (স্যাকমো) ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) গাড়িচালক রয়েছেন। তিনি জানান, ইউএনওর গাড়িচালকের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ায় রোববার সকালে ইউএনওর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে জানা গেছে, নতুন শনাক্ত হওয়া ২৭ জনের মধ্যে ৯ জনই সেনবাগ উপজেলার। আর বাকিদের মধ্যে সদরের আটজন, হাতিয়ার একজন, বেগমগঞ্জের চারজন ও চাটখিলের পাঁচজন রয়েছেন।

ওই কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলার চাটখিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশন ইউনিটে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তাঁর নাম আনোয়ার হোসেন (৭০)। তিনি উপজেলার বদলকোর্ট ইউনিয়নের মানিকপুর গ্রামের বাসিন্দা। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন তিনি।

ওই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও করোনা ফোকাল পারসন তামজিদ হোসেন জানান, গত শুক্রবার তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজের ল্যাবে পাঠানো হয়। শনিবার সকাল ১০টায় প্রতিবেদনে তাঁর করোনাভাইরাস পজিটিভ আসে। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিনি আইসোলেশন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে জানা গেছে, এ পর্যন্ত জেলার সদরে ৭৫১ জন, সুবর্ণচরে ১৬৬ জন, হাতিয়ায় ৬৩ জন, চাটখিলে ১৪৯ জন, বেগমগঞ্জে ৬৯৭ জন, সোনাইমুড়ীতে ১৩৮ জন, সেনবাগে ১১৫ জন, কোম্পানীগঞ্জে ১৫৬ জন ও কবিরহাটে ২৭৯ জন এ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন